যুল বিজাদাইন রা.

যুল বিজাদাইন রা.

ইসলামের প্রতি আকর্ষষ

كان عبد الله ذو البجادين من مزينة وكان يتيما لا مال له، مات أبوه فلم يورثه شيئا، وكان عمه ميلا فأخذه وكفله حتى كان قد أيسر، وكانت له إبل وغنم ورقيق، فلما قدم رسول الله صلى الله عليه وسلم المدينة، كانت نفسه تتوق إلى الإسلام، ولا يقدر عليه من عمه، حتى مضت السنون والمشاهد كلها، فانصرف رسول الله صلى الله عليه وسلم من فتح مكة راجعا إلى المدينة وذهبت أمه إلى قومها، فقالت: إن عبد الله قد توجه نحو محمد، فاتبعوه فردوه، فقالت أمه: خذوا ثيابه، فإنه أشد الناس حياء، فإنكم إن أخذتم ثيابه لم يبرح،

অর্থ: হযরত আব্দুল্লাহ যুল বিজাদাইন রা. মুযাইনা গোত্রের একজন সদস্য ছিলেন। তিনি ছিলেন এতিম, কোন সম্পদ ছিল না। (গরীব হওয়ার কারণে) বাবা মারা যাওয়ার সময় কোন সম্পদ রেখে যেতে পারেননি। কিন্তু তাঁর চাচা ছিলেন প্রচুর সম্পদশালী, ফলে চাচা তাঁর লালন-পালনের দায়ীত্ব নিলেন, ইতিমধ্যে তিনি ধনী হয়ে গিয়েছিলেন। উট,বকরী এবং ছিল। যখন নবীজি সা. মাদীনায় আগমন করলেন, তখন ইসলাম গ্রহণের প্রতি তাঁর আগ্রহ তৈরি হলো। কিন্তু চাচার জন্য মুসলমান হতে পারছিলেন না। এভাবেই কেটে গিয়েছিল কয়েকটি বছর। কিন্তু মক্কা বিজয়ের পর নবীজি সা. যখন পূনরায় মাদীনায় আগমন করলেন, তখন একদিন তিনি আর কাল ক্ষেপন না করে মাদীনায় নবীজি সা. এর উদ্দেশ্যে একাই রওনা হয়ে গেলেন। তাঁর মা টের পেয়ে তার গোত্রের লোকজনের কাছে গিয়ে বললেন, আব্দুল্লাহ তো মুহাম্মাদের উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে গেছে, তাকে গিয়ে থামাও। মা আরও বললেন, সে খুব লাজুক মানুষ তার কাপড় খুলে নিলে সে থেমে যাবে। চাচার কাছে খবর যখন পৌঁছলো, চাচা আব্দুল্লাহকে ডেকে জানতে চাইলে হযরত আব্দুল্লাহ যুল বিজাদাইন রা. বললেন, চাচা,

إني قد انتظرت إسلامك فلا أراك تريد محمدا، فأذن لي في الإسلام

অর্থাৎ আমি অপেক্ষায় ছিলাম আপনি ইসলাম গ্রহণ করবেন আশায়। কিন্তু এখন মনে হচ্ছে না যে, আপনি মুহাম্মাদ সা. এর প্রতি আপনার কোনো ভাল ইচ্ছা পোষণ করবেন। সুতরাং আমাকে ইসলাম গ্রহণের অনুমতি দেন। চাচা তখন বললেন,

لئن اتبعت محمدا لا أترك بيدك شيئا كنت أعطيتكه إلا نزعته منك حتى ثوبيك

অর্থাৎ তুমি যদি মুহাম্মাদের অনুসরণ করো, তাহলে আমার দেয়া কোনও কিছুই তোমার কাছে রাখবো না, এমনকি পরণের দুটি কাপড়ও (আমার দেয়া,ওটাও) খুলে নেবো। তিনি সুস্পষ্টভাবে জানিয়ে দিলেন,

أنا والله متبع محمدا ومسلم، وتارك عبادة الحجر والوثن وهذا ما بيدي فخذه فأخذ كل ما أعطاه حتى جرده من إزاره
অর্থাৎ আল্লাহর কসম আমি মুহাম্মাদ সা. এর অনুসরন করে মুসলিম হবো এবং পাথর ও মূর্তির পুজো ছেড়ে দেবো। আর এই নিন আমার হাতে থাকা আপনার সকল সম্পদ। অতপর চাচা সব নিয়ে নিলো, এমনকি লুঙ্গীটা পর্যন্ত খুলে নিল।

فأتى أمه فقعد في البيت، فأبى أن يأكل ويشرب حتى يلحق بمحمد صلى الله عليه وسلم.
فلما رأت أمه أنه لا يأكل ولا يشرب أتت قومها، فأخبرتهم أنه قد حلف لا يأكل ولا يشرب حتى يلحق بمحمد صلى الله عليه وسلم فأعطوه ثيابه فإني أخاف أن يموت فأبوا، فأخذت بجادها وقطعته قطعتين، ثم زررت أحدهما فاتزره ووضع الآخر على رأسه، وقالت: اذهب
অতপর তিনি মায়ের কাছে ফিরে এসে ঘরে অবস্থান করতে লাগলেন। (মা খাওয়ার জন্য বললে, তিনি সাফ জানিয়ে দিলেন,) মুহাম্মাদ সা. এর সাথে সাক্ষাৎ হওয়ার আগ পর্যন্ত পানাহার করবেন না। মা যখন দেখলেন, যে তিনি শপথ করেছেন, নবীজি সা. এর সাথে সাক্ষাতের আগ পর্যন্ত পানাহার করবেন না, তখন আবার গোত্রের লোকদের কাছে এসে বললেন, আব্দুল্লাহ তো শপথ করেছে সে মুহাম্মাদ সা. এর সাথে সাক্ষাতের আগ পর্যন্ত পানাহার করবে না, অতএব তোমরা তার কাপড় ফিরিয়ে দাও। অন্যথায় সে মারা যাওয়ার ভয় পাচ্ছি। কিন্তু তারা কাপড় দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে দিল। অতপর মা একটি কাপড় দুই টুকরো করে দিলে একটি দিয়ে লুঙ্গী পরলেন আরেকটি দিয়ে মাথা ঢাকলেন। মা বললেন, এবার যাও।

মাদীনায় আগমন

ثم أقبل إلى المدينة وكان بورقان جبل بالمدينة فاضطجع في المسجد في السحر ثم صلى مع رسول الله صلى الله عليه وسلم
الصبح، وكان رسول الله صلى الله عليه وسلم يتصفح الناس إذا انصرف من الصبح فنظر إليه، فأنكره، فقال مَنْ أنتَ قال أنا عبدُ العُزّى فقال بل أنتَ عبد اللهِ ذو البِجادَيْنِ ثم قال
انزل مني قريبا
فكان يكون في أضيافه ويعلمه القرآن، حتى قرأ قرآنا كثيرا

অতপর তিনি মাদীনায় এসে সাহরীর সময় মসজিদে নবীজেতে এসে শুয়ে রইলেন। অতপর নবীজি সা. এর সাথে ফজরের নামাজ আদায় করলেন। রাসুল সা. নামাজ শেষ করে সকলের খবর নেওয়ার সময় তাঁর দিকে নজর গেল।কিন্তু তিনি চিনতে না পেরে জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কে? তিনি বললেন, আমি আব্দুল উজ্জা। সব খুলে বলার পর নবীজি বললেন, তুমি আব্দুল্লাহ যুল বিজাদাইন। আরও বললেন, তুমি আমার পাশেই থেকো।

উচ্চস্বরে তিলাওয়াত
وكان رجلا صيتا فكان يقوم في المسجد فيرفع صوته بالقراءة فقال عمر رضي الله تبارك وتعالى عنه يا رسول الله ألا تسمع هذا الأعرابي يرفع صوته بالقرآن حتى قد منع الناس القراءة؟ فقال النبي صلى الله عليه وسلم: دعه يا عمر فإنه خرج مهاجرا إلى الله ورسوله.

وكان يرفعُ صوته بالقرآن والتكبيرِ والتسبيحِ فقالَ عُمَرُ بن الخطاب رضي الله عنه يا رسولَ الله، أَمُراءٍ هُوَ؟ قال: دَعْهُ عنكَ، فإنّه أحدُ الأوّاهينَ

যুদ্ধে গমন

قال: فلما خرج إلى تبوك قال: يا رسول الله، ادع الله لي بالشهادة، فقال: أبلغني لحاء سمرة فأبلغه لحاء سمرة، فربطها رسول الله صلى الله عليه وسلم على عضده وقال: اللهم إني أحرم دمه على الكفار، فقال: يا رسول الله ليس هذا أردت، قال النبي صلى الله عليه وسلم: إنك إذا خرجت غازيا في سبيل الله فأخذتك الحمى فقتلتك فأنت شهيد، أو وقصتك دابتك فأنت شهيد، لا تبال بأية كان

ইন্তেকাল

فلما نزلوا تبوك أقاموا بها أياما، وتوفي عبد الله ذو البجادين، فكان بلال ابن الحارث يقول: حضرت رسول الله صلى الله عليه وسلم ومع بلال المؤذن شعلة من نار عند القبر واقفا بها، وإذا رسول الله صلى الله عليه وسلم في القبر، وإذا أبو بكر وعمر – رضي الله تبارك وتعالى عنهما – يدليانه إلى رسول الله صلى الله عليه وسلم وهو يقول: أدنيا إلي أخاكما

নবীজির দুআ

فأخذه من قبل القبلة حتى أسنده في لحده ثم خرج رسول الله صلى الله عليه وسلم وولياهما العمل فلما فرغا من دفنه استقبل القبلة رافعا يديه يقول اللهم إني أمسيت عنه راضيا فارض عنه

ইবনে মাসউদ রা. এর কামনা-

قال يقول ابن مسعود فوالله لوددت انى مكانه ولقد أسلمت قبله بخمس عشرة سنة

আবু বকর রা. এর কামনা-

وقد روى من طريق آخر قال فقال أبو بكر وددت انى والله صاحب القبر

সূত্র: আসাতুল গায়াহ ফি মারিফাতিস সাহাবাহ (ইবনুল আসীর) খ: ৪ পৃ: ২২৯ মুসনাদে আহমাদ হাদিস: ১৭৪৫৩ তাবরানী: ৮১৩ দুররুস সাহাবা (শাওকানী রহ.) পৃ: ৩৯ মাজমাউয যাওয়ায়েদ খ: ৯ পৃ: ৩৭২ আল ইসাবাহ (ইবনে হাজার) খ: ২ পৃ: ৩৩৯ আল ইসতিআব ফি মারিফাতিল আসহাব

Check Also

মায়ের বদ দুআ ও পরবর্তী ফল।

  وعن أَبي هريرة رضي اللَّه عنه عن النبي صَلّى االلهُ عَلَيْهِ وسَلَّم قال : …

Leave a Reply

Your email address will not be published.