اعۡبُدُوا اللّٰهَ وَ لَا تُشۡرِکُوۡا بِهٖ شَیۡئًا وَّ بِالۡوَالِدَیۡنِ اِحۡسَانًا

কেন করবো?
১. এহসান কাকে বলে?
২ সুদ
৩. বাপ-মা হিসাব করেননি,
৪. চাকরিরর ইন্টার্ভিউ
৫. ঘুমের ঘরে মা সন্তানের শরীরে গড়া।

সুলাইমান আ. এর বিচার :

فَقَالَ ائْتُونِي بِالسِّكِّينِ أَشُقُّهُ بَيْنَهُمَا فَقَالَتْ الصُّغْرَى لاَ تَفْعَلْ يَرْحَمُكَ اللهُ هُوَ ابْنُهَا فَقَضَى بِهِ لِلصُّغْرَى

فقالت الصغرى أتشقه فقال نعم فقالت لا تفعل حظي منه لها

لو كان ابنك لم ترضي أن يقطع

وَإِن جَاهَدَاكَ عَلى أَن تُشْرِكَ بِي مَا لَيْسَ لَكَ بِهِ عِلْمٌ فَلَا تُطِعْهُمَا وَصَاحِبْهُمَا فِي الدُّنْيَا مَعْرُوفًا

বাবা-মার জন্য খরচ

يَسْأَلُونَكَ مَاذَا يُنفِقُونَ قُلْ مَا أَنفَقْتُم مِّنْ خَيْرٍ فَلِلْوَالِدَيْنِ…

১. أنتَ ومالُكَ لأبيكَ
২. প্রবাসীর ব্যাগ আর মা মুখ
৩. স্ত্রী বাবা মার ভক্ত হতো

 

বাবা-মা খুশি হলে জান্নাতের দরজা খোলা 

ইবনে আব্বাস রা. বলেন,

مَا مِنْ مُؤْمِنٍ لَهُ أَبَوَانِ فَيُصْبِحُ وَهُوَ مُحْسِنٌ إِلَيْهِمَا، إِلَّا فَتَحَ اللَّهُ لَهُ بَابَيْنِ مِنَ الْجَنَّةِ

নবীজি সা. বলেন,

وَلَا يُصْبِحُ وَهُوَ مُسِيءٌ إِلَيْهِمَا إِلَّا فَتَحَ اللَّهُ لَهُ بَابَيْنِ مِنَ النَّارِ، وَإِنْ كَانَ وَاحِدًا فَوَاحِدٌ

করোনা আসল কেন?

হযরত আলী রা. থেকে বর্ণিত নবীজি সা. বলেন,

إذا عمِلَتْ أُمَّتي خَمسَ عَشْرةَ خَصْلةً حلَّ بها البلاءُ قالوا يا رسولَ اللهِ وما هي قال إذا كان الفيءُ دِوَلًا والأمانةُ مَغْنَمًا والزَّكاةُ مَغرَمًا وأطاع الرَّجُلُ زوجتَه وعقَّ أُمَّه وارتفَعَتِ الأصواتُ في المساجِدِ وبَرَّ الرَّجُلُ صديقَه وجَفا أباه وأُكرِم الرَّجُلُ مخافةَ شرِّه وكان زعيمُ القومِ أرذَلَهم واتُّخِذَتِ القِيانُ والمعازفُ وشرِبوا الخُمورَ ولبِسوا الحريرَ فانتظِروا مَسْخًا وخَسْفًا

 

وَ قَضٰی رَبُّکَ اَلَّا تَعۡبُدُوۡۤا اِلَّاۤ اِیَّاهُ وَ بِالۡوَالِدَیۡنِ اِحۡسَانًا ؕ اِمَّا یَبۡلُغَنَّ عِنۡدَکَ الۡکِبَرَ اَحَدُهُمَاۤ اَوۡ کِلٰهُمَا فَلَا تَقُلۡ لَّهُمَاۤ اُفٍّ وَّ لَا تَنۡهَرۡهُمَا وَ قُلۡ لَّهُمَا قَوۡلًا کَرِیۡمًا

তাফসীর

فَلَا تَقُلْ لَهُمَا أُفٍّ
…يَعْنِي لَا تُقْذِرْهُمَا وَلَا تَقُلْ لَهُمَا قَوْلًا رَدِيئًا
…وَيُقَالُ مَعْنَاهُ إِذَا كَبِرَ الْأَبَوَانِ وَاحْتَاجَا إِلَى رَفْعِ بَوْلِهِمَا وَغَائِطِهِمَا، فَلَا تَأْخُذْ بِأَنْفِكَ عِنْدَ ذَلِكَ،
…وَلَا تَعْبَسْ بِوَجْهِكَ فَإِنَّهُمَا قَدْ رَفَعَا ذَلِكَ مِنْكَ فِي حَالَةِ صِغَرِكَ، وَرَأَيَا ذَلِكَ مِنْكَ كَثِيرًا.

৩. ثُمَّ قَالَ وَلَا تَنْهَرْهُمَا يَعْنِي لَا تُغْلِظْ لَهُمَا بِالْقَوْلِ

এটা কি কলম

وَ قُلۡ لَّهُمَا قَوۡلًا کَرِیۡمًا  يَعْنِي لَيِّنًا حَسَنًا

وَ اخۡفِضۡ لَهُمَا جَنَاحَ الذُّلِّ مِنَ الرَّحۡمَۃِ وَ قُلۡ رَّبِّ ارۡحَمۡهُمَا کَمَا رَبَّیٰنِیۡ صَغِیۡرًا

১. يَعْنِي كُنْ ذَلِيلًا رَحِيمًا عَلَيْهِمَا

২. ডানা কেন বললেন?

৩. من الرحمة অর্থাৎ কারো চাপে পড়ে না।

৪. লোভে পড়ে না

৪. وَ قُلۡ رَّبِّ ارۡحَمۡهُمَا کَمَا رَبَّیٰنِیۡ صَغِیۡرًا

يَعْنِي إِذَا مَاتَا فَادْعُ لَهُمَا بِالْمَغْفِرَةِ

يَعْنِي يَجِبُ عَلَى الْوَلَدِ أَنْ يَعْرِفَ حَقَّ الْوَالِدَيْنِ فِي حَيَاتِهِمَا، وَيَعْرِفَ حَقَّهُمَا بَعْدَ مَوْتِهِمَا، فَيَدْعُوَ لَهُمَا بِالْمَغْفِرَةِ عَلَى أَثَرِ كُلِّ صَلَاةٍ.

وَ وَصَّیۡنَا الۡاِنۡسَانَ بِوَالِدَیۡهِ ۚ حَمَلَتۡهُ اُمُّهٗ وَهۡنًا عَلٰی وَهۡنٍ وَّ فِصٰلُهٗ فِیۡ عَامَیۡنِ اَنِ اشۡکُرۡ لِیۡ وَ لِوَالِدَیۡکَ ؕ اِلَیَّ الۡمَصِیۡرُ

قَالَ سُفْيَانُ بْنُ عُيَيْنَةَ فِي هَذِهِ الْآيَةِ: مَنْ صَلَّى الصَّلَوَاتِ الْخَمْسَ فَقَدْ شَكَرَ اللَّهَ، وَمَنْ دَعَا لِلْوَالِدَيْنِ فِي أَدْبَارِ الصَّلَوَاتِ الْخَمْسِ فَقَدْ شَكَرَ الْوَالِدَيْنِ

বাবা-মা কত আপন

…পেটে নিয়ে হাজার কষ্ট সহ্য

…জন্ম দেয়ার সময় মরতে চায় মা
বুকে পেশাব

… ভাষা বুঝতেন মা।

মা মারলেও
…হুইল চেয়ারে ভিক্ষা

বাজারে গেলে বাবা-
…কমদামি জুতা কিনতেন,
…২ টাকা দিয়ে চা না খেয়ে তোমার জন্য বিস্কিট
ট্রিটমেন্ট করাননি
…ঈদের দিন ছেড়া কাপড় পরে তোমাকে নতুন
…আমার মা দাঁত
আব্বা রিক্সা ভাড়া

পা ভাঙ্গা প্রবাসী লিটন মিয়া।

 

 

বাবা মায়ের সাথে বেয়াদবী

বাবা-মায়ের দুআ

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏ “‏ ثَلاَثُ دَعَوَاتٍ مُسْتَجَابَاتٌ لاَ شَكَّ فِيهِنَّ دَعْوَةُ الْمَظْلُومِ وَدَعْوَةُ الْمُسَافِرِ وَدَعْوَةُ الْوَالِدِ عَلَى وَلَدِهِ ‏

১০ টা সন্তান কে যে পাত্রে খাওয়ালেন,
…যে ঘরে লালন-পালন করলেন,
ফল কিনে গোপনে রাখো?
…আমি মাকে টাকা দিই।
বৃদ্ধাশ্রমের মা চেয়ারে বসা
…পীরের কাছে ফল,
…প্রেমিকাকে বিকাশ অথচ মা বিছানায় পড়া।
জামালপুরের বৃদ্ধ

 

বাবা-মা জান্নাত জাহান্নাম

ما حقُّ الوالِدينِ على ولدِهِما؟ قالَ: هما جنَّتُكَ وَنارُكَ

নবীজি সা. বলেন,

رِضَا الرَّبِّ فِي رِضَا الْوَالِدِ وَسَخَطُ الرَّبِّ فِي سَخَطِ الْوَالِدِ

নবীজি সা. বলেন,

إِنَّ لَعْنَةَ الْوَالِدَيْنِ تُبَرُّ أَيْ تَقْطَعُ أَصْلَ وَلَدِهِمَا إِذَا عَقَّهُمَا، فَمَنْ أَرْضَى وَالِدَيْهِ فَقَدْ أَرْضَى خَالِقَهُ، وَمَنْ أَسْخَطَ وَالِدَيْهِ فَقَدْ أَسْخَطَ خَالِقَهُ، وَمَنْ أَدْرَكَ وَالِدَيْهِ أَوْ أَحَدَهُمَا فَلَمْ يَبَرَّهُمَا فَدَخَلَ النَّارَ، فَأَبْعَدَهُ اللَّهُ

আতা ইবনে ইয়াসির

আলকামা রা. ও তাঁর মা।

فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ سُخْطُ أُمِّهِ حَجَبَ لِسَانَهُ عَنْ شَهَادَةِ أَنْ لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ

ثُمَّ قَالَ لِبِلَالٍ انْطَلِقْ وَاجْمَعْ حَطَبًا كَثِيرًا حَتَّى أُحْرِقَهُ بِالنَّارِ

فَقَالَتْ يَا رَسُولَ اللَّهِ ابْنِي وَثَمَرَةُ فُؤَادِي تَحْرِقُهُ بِالنَّارِ بَيْنَ يَدَيَّ؟ فَكَيْفَ يَحْتَمِلُ قَلْبِي 

فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ انْطَلِقْ يَا بِلَالُ فَانْظُرْ هَلْ يَسْتَطِيعُ عَلْقَمَةُ أَنْ يَقُولَ لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ

فَلَمَّا انْتَهَى إِلَى الْبَابِ سَمِعَ عَلْقَمَةَ يَقُولُ لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ

ثُمَّ قَامَ عَلَى شَفِيرِ الْقَبْرِ وَقَالَ يَا مَعْشَرَ الْمُهَاجِرِينَ وَالْأَنْصَارِ مَنْ فَضَّلَ زَوْجَتَهُ عَلَى أُمِّهِ فَعَلَيْهِ لَعْنَةُ اللَّهِ وَلَا يُقْبَلُ مِنْهُ صَرْفٌ وَلَا عَدْلٌ يَعْنِي الْفَرَائِضَ وَالنَّوَافِلَ

বরিশালের গাড়ি চালক

পিঠটা চুলকিয়ে দাও।

ড. শামসুর রহমান

 

বাবা-মা জিবিত থাকলে ১০ টি হক:

আবুল লাইস সামারকান্দী রহ. বলেন,

أَحَدُهُمْ أَنَّهُ إِذَا احْتَاجَ إِلَى الطَّعَامِ أَطْعَمَهُ.

وَالثَّانِي إِذَا احْتَاجَ إِلَى الكُسْوَةِ كَسَاهُ إِنْ قَدِرَ عَلَيْهِ

وَالثَّالِثُ إِذَا احْتَاجَ أَحَدُهُمَا إِلَى خِدْمَتِهِ خَدَمَهُ.

وَالرَّابِعُ إِذَا دَعَاهُ أَجَابَهُ وَحَضَرَهُ.

وَالْخَامِسُ إِذَا أَمَرَهُ بِأَمْرٍ أَطَاعَهُ مَا لَمْ يَأْمُرْ بِالْمَعْصِيَةِ وَالْغَيْبَةِ.

وَالسَّادِسُ أَنْ يَتَكَلَّمَ مَعَهُ بِاللِّينِ وَلَا يَتَكَلَّمَ مَعَهُ بِالْكَلَامِ الْغَلِيظِ.

وَالسَّابِعُ أَنْ لَا يَدْعُوهُ بِاسْمِهِ، وَالثَّامِنُ أَنْ يَمْشِي خَلْفَهُ.

وَالتَّاسِعُ أَنْ يَرْضَى لَهُ مَا يَرْضَى لِنَفْسِهِ، وَيَكْرَهَ لَهُ مَا يَكْرَهُ لِنَفْسِهِ.

وَالْعَاشِرُ أَنْ يَدْعُوَ لَهُ بِالْمَغْفِرَةِ كُلَّمَا يَدْعُو لِنَفْسِهِ.
সূত্র: তাম্বীহুল গাফিলীন পৃ. ৯৪

মৃত্যুর পর কয়েকটি কাজ

وَذُكِرَ أَنَّ رَجُلًا مِنْ بَنِي سَلَمَةَ جَاءَ إِلَى النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَقَالَ: إِنَّ أَبَوَيَّ قَدْ مَاتَا فَهَلْ بَقِيَ مِنْ بِرِّهِمَا عَلَيَّ شَيْءٌ؟ قَالَ: نَعَمْ الِاسْتِغْفَارُ لَهُمَا وَإِنْفَاذُ عَهْدِهِمَا وَإِكْرَامُ صَدِيقِهِمَا وَصِلَةُ الرَّحِمِ الَّتِي لَا تُوصَلُ إِلَّا بِهِمَا
সূত্র: তাম্বীহুল গাফিলীন

أَوَّلُهَا أَنْ يَكُونَ الْوَلَدُ صَالِحًا فِي نَفْسِهِ، لِأَنَّهُ لَا يَكُونُ شَيْءٌ أَحَبَّ إِلَيْهِمَا مِنْ صَلَاحِهِ.

وَالثَّانِي أَنْ يَصِلَ قَرَابَتَهُمَا وَأَصْدِقَاءَهُمَا.

وَالثَّالِثُ: أَنْ يَسْتَغْفِرَ لَهُمَا وَيَدْعُوَ لَهُمَا وَيَتَصَدَّقَ عَنْهُمَا

 

وَرُوِيَ عَنْ بَعْضِ الصَّحَابَةِ رَضِيَ اللَّهُ تَعَالَى عَنْهُ , أَنَّهُ قَالَ: ” تَرْكُ الدُّعَاءِ لِلْوَالِدَيْنِ يُضَيِّقُ الْعَيْشَ عَلَى الْوَلَدِ

 

وَ اعۡبُدُوا اللّٰهَ وَ لَا تُشۡرِکُوۡا بِهٖ شَیۡئًا وَّ بِالۡوَالِدَیۡنِ اِحۡسَانًا

আর উপাসনা কর আল্লাহর, শরীক করো না তাঁর সাথে অপর কাউকে। পিতা-মাতার সাথে সৎ ও সদয় ব্যবহার কর

কেন করবো?
১. এহসান কাকে বলে?
২ সুদ
৩. বাপ মা হিসাব করে খরচ করেননি, তুমি মাসিক হিসাব কেন করো?
৪. তুমি চাকরিরর ইন্টার্ভিউ দেওয়ার রাতে মা ঘুমাইনি
৫. ঘুমের ঘরে মা সন্তানের শরীরে গড়া।

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ أَنَّ رَسُولَ اللهِ صلى الله عليه وسلم صلى الله عليه وسلم قَالَ كَانَتْ امْرَأَتَانِ مَعَهُمَا ابْنَاهُمَا جَاءَ الذِّئْبُ فَذَهَبَ بِابْنِ إِحْدَاهُمَا فَقَالَتْ لِصَاحِبَتِهَا إِنَّمَا ذَهَبَ بِابْنِكِ وَقَالَتْ الْأُخْرَى إِنَّمَا ذَهَبَ بِابْنِكِ فَتَحَاكَمَتَا إِلَى دَاوُدَ عَلَيْهِ السَّلاَم فَقَضَى بِهِ لِلْكُبْرَى فَخَرَجَتَا عَلَى سُلَيْمَانَ بْنِ دَاوُدَ عَلَيْهِمَا السَّلاَم فَأَخْبَرَتَاهُ فَقَالَ ائْتُونِي بِالسِّكِّينِ أَشُقُّهُ بَيْنَهُمَا فَقَالَتْ الصُّغْرَى لاَ تَفْعَلْ يَرْحَمُكَ اللهُ هُوَ ابْنُهَا فَقَضَى بِهِ لِلصُّغْرَى

আবূ হুরাইরাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ দু’জন স্ত্রীলোকের সাথে তাদের দু’টো ছেলে ছিল। বাঘ এসে তাদের একজনের ছেলেকে নিয়ে গেল। এক মহিলা তার সঙ্গিণীকে বলল, বাঘ তোমার ছেলেকে নিয়ে গেছে। অন্যজন বলল, বাঘ তোমার ছেলেকে নিয়ে গেছে। তারা দু’জন দাউদ (আঃ)-এর কাছে তাদের মামলা পেশ করল। তিনি বড় স্ত্রীলোকটির পক্ষে রায় দিলেন। তারপর তারা বেরিয়ে দাউদ (আঃ)-এর ছেলে সুলায়মান (আঃ)-এর কাছে গেল আর তারা দু’জনেই তাঁকে তাদের ঘটনা জানালো। তখন তিনি বললেন, আমার কাছে একটি ছুরি আন কেটে দু’জনের মধ্যে ভাগ করে দেব। তখন ছোট স্ত্রীলোকটি বলল, আপনি এমন করবেন না, আল্লাহ্ আপনার উপর দয়া করুন। এ ছেলেটি তারই। তখন তিনি ছেলেটি ছোট মহিলার ব’লে রায় দিলেন।
সূত্র: সহিহ বুখারী হাদিস: ৬৭৬৯

عن أبي الزناد وفيه : فقال ائتوني بالسكين أشق الغلام بينهما ، فقالت الصغرى أتشقه؟ فقال : نعم ، فقالت : لا تفعل ، حظي منه لها

عن أبي هريرة وذكر الحديث مختصرا ، وقال في آخره : ” فقال سليمان – يعني للكبرى – لو كان ابنك لم ترضي أن يقطع
ফতহুল বারী খ. ১২ পৃ. ৫৬

وَإِن جَاهَدَاكَ عَلى أَن تُشْرِكَ بِي مَا لَيْسَ لَكَ بِهِ عِلْمٌ فَلَا تُطِعْهُمَا وَصَاحِبْهُمَا فِي الدُّنْيَا مَعْرُوفًا

পিতা-মাতা যদি তোমাকে আমার সাথে এমন বিষয়কে শরীক স্থির করতে পীড়াপীড়ি করে, যার জ্ঞান তোমার নেই; তবে তুমি তাদের কথা মানবে না এবং দুনিয়াতে তাদের সাথে সদ্ভাবে সহঅবস্থান করবে।
সুরাঃ লুকমান আয়াত: ১৫

বাবা-মার জন্য খরচ

يَسْأَلُونَكَ مَاذَا يُنفِقُونَ قُلْ مَا أَنفَقْتُم مِّنْ خَيْرٍ فَلِلْوَالِدَيْنِ…

তোমার কাছে জিজ্ঞেস করে, কি তারা ব্যয় করবে? বলে দাও-যে বস্তুই তোমরা ব্যয় কর, তা হবে পিতা-মাতার জন্যে…
সুরাঃ বাকারা আয়াত: ২১৫

হযরত জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ, সামুরা ইবনে জুনদুব, ইবনে মাসউদ রা. থেকে বর্ণিত নবীজি সা. বলেন,

أنتَ ومالُكَ لأبيكَ

অর্থাৎ তুমি এবং তোমার সম্পদ তোমার বাবার।
সূত্র: জামে সগীর হাদিস: ২৬৯৭

…বিদেশ থেকে আসলে সবাই তাকাই ব্যাগের দিকে কিন্তু মা তাকায় পেট আর মুখের দিকে।

…তাহলে স্ত্রী বাবা মার সাথে খারাপ ব্যবহার করতে পারতো না। যেমন আমার স্ত্রী এখন বাবা মায়ের ভক্ত।

عَنْ ابْنِ عَبَّاسٍ رَضِيَ اللَّهُ تَعَالَى عَنْهُمَا , قَالَ: «مَا مِنْ مُؤْمِنٍ لَهُ أَبَوَانِ فَيُصْبِحُ وَهُوَ مُحْسِنٌ إِلَيْهِمَا، إِلَّا فَتَحَ اللَّهُ لَهُ بَابَيْنِ مِنَ الْجَنَّةِ، وَلَا يَسْخَطُ عَلَيْهِ وَاحِدٌ مِنْهُمَا فَيَرْضَى اللَّهُ تَعَالَى عَنْهُ، حَتَّى يَرْضَى
وَرُوِيَ هَذَا الْخَبَرُ مَرْفُوعًا زَيَادَةً قَالَ:

নবীজি সা. বলেন,

وَلَا يُصْبِحُ وَهُوَ مُسِيءٌ إِلَيْهِمَا إِلَّا فَتَحَ اللَّهُ لَهُ بَابَيْنِ مِنَ النَّارِ، وَإِنْ كَانَ وَاحِدًا فَوَاحِدٌ
সূত্র: তাম্বীহুল গাফিলিন পৃ. ৬৫

করোনা আসল কেন?

হযরত আলী রা. থেকে বর্ণিত নবীজি সা. বলেন,

إذا عمِلَتْ أُمَّتي خَمسَ عَشْرةَ خَصْلةً حلَّ بها البلاءُ قالوا يا رسولَ اللهِ وما هي قال إذا كان الفيءُ دِوَلًا والأمانةُ مَغْنَمًا والزَّكاةُ مَغرَمًا وأطاع الرَّجُلُ زوجتَه وعقَّ أُمَّه وارتفَعَتِ الأصواتُ في المساجِدِ وبَرَّ الرَّجُلُ صديقَه وجَفا أباه وأُكرِم الرَّجُلُ مخافةَ شرِّه وكان زعيمُ القومِ أرذَلَهم واتُّخِذَتِ القِيانُ والمعازفُ وشرِبوا الخُمورَ ولبِسوا الحريرَ فانتظِروا مَسْخًا وخَسْفًا
তবরানী খ. ১ পৃ. ১৫০

وَ قَضٰی رَبُّکَ اَلَّا تَعۡبُدُوۡۤا اِلَّاۤ اِیَّاهُ وَ بِالۡوَالِدَیۡنِ اِحۡسَانًا ؕ اِمَّا یَبۡلُغَنَّ عِنۡدَکَ الۡکِبَرَ اَحَدُهُمَاۤ اَوۡ کِلٰهُمَا فَلَا تَقُلۡ لَّهُمَاۤ اُفٍّ وَّ لَا تَنۡهَرۡهُمَا وَ قُلۡ لَّهُمَا قَوۡلًا کَرِیۡمًا

আর তোমার রব আদেশ দিয়েছেন যে, তোমরা তাঁকে ছাড়া অন্য কারো ইবাদাত করবে না এবং পিতা-মাতার সাথে সদাচরণ করবে। তাদের একজন অথবা উভয়েই যদি তোমার নিকট বার্ধক্যে উপনীত হয়, তবে তাদেরকে ‘উফ’ বলো না এবং তাদেরকে ধমক দিও না। আর তাদের সাথে সম্মানজনক কথা বল।
সুরাঃ ইসরা, আয়াত: ২৩

তাফসীর

فَلَا تَقُلْ لَهُمَا أُفٍّ
…يَعْنِي لَا تُقْذِرْهُمَا وَلَا تَقُلْ لَهُمَا قَوْلًا رَدِيئًا
…وَيُقَالُ مَعْنَاهُ إِذَا كَبِرَ الْأَبَوَانِ وَاحْتَاجَا إِلَى رَفْعِ بَوْلِهِمَا وَغَائِطِهِمَا، فَلَا تَأْخُذْ بِأَنْفِكَ عِنْدَ ذَلِكَ،
…وَلَا تَعْبَسْ بِوَجْهِكَ فَإِنَّهُمَا قَدْ رَفَعَا ذَلِكَ مِنْكَ فِي حَالَةِ صِغَرِكَ، وَرَأَيَا ذَلِكَ مِنْكَ كَثِيرًا.

৩. ثُمَّ قَالَ وَلَا تَنْهَرْهُمَا يَعْنِي لَا تُغْلِظْ لَهُمَا بِالْقَوْلِ

যেমন ছোট বেলায় একই জিনিষ কতবার জিজ্ঞাসা করেছো, কিন্তু বাবা-মা ধমক দদেননি। এখন তারাও তোমার মত বয়সের ভারে অবুজ হয়ে গিয়ে যদি বারবার কিছু জিগায় তখন তুমিও ধমক দিয়ে বলো না যে, বুড়ো হয়ে গেছেন এত কথা কেন বলেন? চুপ থাকতে পারেন না? এমনটা না বলে বরং

وَ قُلۡ لَّهُمَا قَوۡلًا کَرِیۡمًا  يَعْنِي لَيِّنًا حَسَنًا
অর্থাৎ আর তাঁদের সাথে সম্মানজনক কথা বল।

 

وَ اخۡفِضۡ لَهُمَا جَنَاحَ الذُّلِّ مِنَ الرَّحۡمَۃِ وَ قُلۡ رَّبِّ ارۡحَمۡهُمَا کَمَا رَبَّیٰنِیۡ صَغِیۡرًا

আর তাদের উভয়ের জন্য দয়াপরবশ হয়ে বিনয়ের ডানা নত করে দাও এবং বল, ‘হে আমার রব, তাদের প্রতি দয়া করুন যেভাবে শৈশবে তারা আমাকে লালন-পালন করেছেন’।
সুরাঃ ইসরা আয়াত: ২৪

১. يَعْنِي كُنْ ذَلِيلًا رَحِيمًا عَلَيْهِمَا

২. ডানা কেন বললেন? কারণ পাখির ডানায় সবচে শক্তি বেশি থাকে।

৩. من الرحمة অর্থাৎ কারো চাপে পড়ে না।

৪. وَ قُلۡ رَّبِّ ارۡحَمۡهُمَا کَمَا رَبَّیٰنِیۡ صَغِیۡرًا

يَعْنِي إِذَا مَاتَا فَادْعُ لَهُمَا بِالْمَغْفِرَةِ

يَعْنِي يَجِبُ عَلَى الْوَلَدِ أَنْ يَعْرِفَ حَقَّ الْوَالِدَيْنِ فِي حَيَاتِهِمَا، وَيَعْرِفَ حَقَّهُمَا بَعْدَ مَوْتِهِمَا، فَيَدْعُوَ لَهُمَا بِالْمَغْفِرَةِ عَلَى أَثَرِ كُلِّ صَلَاةٍ.

উক্ত আয়াতের তাফসীরে বুঝতে নিচের আয়াত ও তাফসীর দেখি

وَ وَصَّیۡنَا الۡاِنۡسَانَ بِوَالِدَیۡهِ ۚ حَمَلَتۡهُ اُمُّهٗ وَهۡنًا عَلٰی وَهۡنٍ وَّ فِصٰلُهٗ فِیۡ عَامَیۡنِ اَنِ اشۡکُرۡ لِیۡ وَ لِوَالِدَیۡکَ ؕ اِلَیَّ الۡمَصِیۡرُ

আর আমি মানুষকে তার পিতা-মাতার সাথে সদ্ব্যবহারের জোর নির্দেশ দিয়েছি। তার মাতা তাকে কষ্টের পর কষ্ট করে গর্ভে ধারণ করেছে। তার দুধ ছাড়ানো দু বছরে হয়। নির্দেশ দিয়েছি যে, আমার প্রতি ও তোমার পিতা-মতার প্রতি কৃতজ্ঞ হও। অবশেষে আমারই নিকট ফিরে আসতে হবে
সুরাঃ লুকমান আয়াত: ১৪

قَالَ سُفْيَانُ بْنُ عُيَيْنَةَ فِي هَذِهِ الْآيَةِ: مَنْ صَلَّى الصَّلَوَاتِ الْخَمْسَ فَقَدْ شَكَرَ اللَّهَ، وَمَنْ دَعَا لِلْوَالِدَيْنِ فِي أَدْبَارِ الصَّلَوَاتِ الْخَمْسِ فَقَدْ شَكَرَ الْوَالِدَيْنِ
সূত্র: তাফসীরে বগবী খ. ৬ পৃ. ২৮৭ রুহুল মাআনী খ. ২১ পৃ. ৮৭ আল ফাতহুর রব্বানী খ. ১৮ পৃ. ২৩০

বাবা-মা কত আপন

…জন্মগ্রহণ কালে জনৈক মহিলার ব্যাপারে ডাক্তার বলেছে, হয়তো বাচ্চা বাঁচবে না হয় মা, কি করবো? সবাই বলে, বাচ্চা মেরে দেন। মা বলে আমাকে মারেন।

…স্বামীকে ডেকে বলে, স্বামী মাফ করে দিয়েন।

…জন্ম গ্রহণ করে পেশাব। ডার বাম করে সব পাশের কাপড় শেষ করতেন মা, অবশেষে কাপড় না থাকায় বুকের মধ্যে নিয়ে নিজে ঠান্ডা উপভোগ করেও সন্তানকে আগলে রাখতেন, তবুও ধমকটুকুও দেননি মা।

…মারলেও মা তিনিদিন ঘুমাতে পারে না,খেতে পারে না। বাবা বলে কেন খাও না? বলে বাচ্চাটার ডাক খানার চেয়েও মজা।

…যখন কথা বলতে পারতে না, তখন তোমার ভাষা বুঝতেন মা।
…হুইল চেয়ারে ভিক্ষা

বাজারে গেলে বাবা-
…কমদামি জুতা কিনতেন,
…২ টাকা দিয়ে চা না খেয়ে তোমার জন্য বিস্কিট
…ট্রিটমেন্ট করাননি
…ঈদের দিন ছেড়া কাপড় পরে তোমাকে নতুন
…আমার মা দাঁত
…আব্বা রিক্সা ভাড়া

 

আগে খবর জানেন মা:

…পা ভাঙ্গা প্রবাসী লিটন মিয়া।

 

 

 

 

বাবা-মা জিবিত থাকলে ১০ টি হক:

আবুল লাইস সামারকান্দী রহ. বলেন,

أَحَدُهُمْ أَنَّهُ إِذَا احْتَاجَ إِلَى الطَّعَامِ أَطْعَمَهُ.

وَالثَّانِي إِذَا احْتَاجَ إِلَى الكُسْوَةِ كَسَاهُ إِنْ قَدِرَ عَلَيْهِ

وَهَكَذَا رُوِيَ عَنْ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فِي تَفْسِيرِ قَوْلِهِ تَعَالَى: {وَصَاحِبْهُمَا فِي الدُّنْيَا مَعْرُوفًا} [لقمان: 15] ، فَقَالَ: «الْمُصَاحَبَةُ بِالْمَعْرُوفِ أَنْ يُطِيعَهُمَا إِذَا جَاعَا وَيَكْسُوهُمَا إِذَا عَرِيَا» .

وَالثَّالِثُ إِذَا احْتَاجَ أَحَدُهُمَا إِلَى خِدْمَتِهِ خَدَمَهُ.

وَالرَّابِعُ إِذَا دَعَاهُ أَجَابَهُ وَحَضَرَهُ.

وَالْخَامِسُ إِذَا أَمَرَهُ بِأَمْرٍ أَطَاعَهُ مَا لَمْ يَأْمُرْ بِالْمَعْصِيَةِ وَالْغَيْبَةِ.

وَالسَّادِسُ أَنْ يَتَكَلَّمَ مَعَهُ بِاللِّينِ وَلَا يَتَكَلَّمَ مَعَهُ بِالْكَلَامِ الْغَلِيظِ.

وَالسَّابِعُ أَنْ لَا يَدْعُوهُ بِاسْمِهِ، وَالثَّامِنُ أَنْ يَمْشِي خَلْفَهُ.

وَالتَّاسِعُ أَنْ يَرْضَى لَهُ مَا يَرْضَى لِنَفْسِهِ، وَيَكْرَهَ لَهُ مَا يَكْرَهُ لِنَفْسِهِ.

وَالْعَاشِرُ أَنْ يَدْعُوَ لَهُ بِالْمَغْفِرَةِ كُلَّمَا يَدْعُو لِنَفْسِهِ.
সূত্র: তাম্বীহুল গাফিলীন পৃ. ৯৪

মৃত্যুর পর কয়েকটি কাজ

وَذُكِرَ أَنَّ رَجُلًا مِنْ بَنِي سَلَمَةَ جَاءَ إِلَى النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَقَالَ: إِنَّ أَبَوَيَّ قَدْ مَاتَا فَهَلْ بَقِيَ مِنْ بِرِّهِمَا عَلَيَّ شَيْءٌ؟ قَالَ: نَعَمْ الِاسْتِغْفَارُ لَهُمَا وَإِنْفَاذُ عَهْدِهِمَا وَإِكْرَامُ صَدِيقِهِمَا وَصِلَةُ الرَّحِمِ الَّتِي لَا تُوصَلُ إِلَّا بِهِمَا
সূত্র: তাম্বীহুল গাফিলীন

أَوَّلُهَا أَنْ يَكُونَ الْوَلَدُ صَالِحًا فِي نَفْسِهِ، لِأَنَّهُ لَا يَكُونُ شَيْءٌ أَحَبَّ إِلَيْهِمَا مِنْ صَلَاحِهِ.

وَالثَّانِي أَنْ يَصِلَ قَرَابَتَهُمَا وَأَصْدِقَاءَهُمَا.

وَالثَّالِثُ: أَنْ يَسْتَغْفِرَ لَهُمَا وَيَدْعُوَ لَهُمَا وَيَتَصَدَّقَ عَنْهُمَا
সূত্র: সূত্র: তাম্বীহুল গাফিলীন পৃ. ৯৪ গিযাউল আলবাব খ. ১ পৃ. ৩০৩

وَرُوِيَ عَنْ بَعْضِ الصَّحَابَةِ رَضِيَ اللَّهُ تَعَالَى عَنْهُ , أَنَّهُ قَالَ: ” تَرْكُ الدُّعَاءِ لِلْوَالِدَيْنِ يُضَيِّقُ الْعَيْشَ عَلَى الْوَلَدِ،
সূত্র: তাম্বীহুল গাফিলীন পৃ. ৯৪

 

বাবা মায়ের সাথে বেয়াদবী

বাবা-মায়ের দুআ

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏ “‏ ثَلاَثُ دَعَوَاتٍ مُسْتَجَابَاتٌ لاَ شَكَّ فِيهِنَّ دَعْوَةُ الْمَظْلُومِ وَدَعْوَةُ الْمُسَافِرِ وَدَعْوَةُ الْوَالِدِ عَلَى وَلَدِهِ ‏

আবূ হুরাইরা (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ তিন প্রকারের দুআ অবশ্যই মঞ্জুর করা হয়, তাতে কোনরকম সন্দেহ নেই। নির্যাতিত ব্যক্তির দুআ, মুসাফিরের দু’আ এবং সন্তানের প্রতি বাবার বদ-দুআ।
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৯০৫

…১০ টা সন্তান কে যে পাত্রে খাওয়ালেন, ১০ সন্তানের পাত্রে তাদের খাওয়া জোটে না।
…যে ঘরে লালন-পালন করলেন, সে ঘরে তাদের জায়গা হলো না।
…খাবার কিনে আনতো সন্তানের জন্য নিজে খেতো না, সন্তানের মুখে তুলে দিতো, আজ সন্তান ফল কিনে ঘরে লুকিয়ে রেখে বিবি সন্তানকে খাওয়ায় আর বুড়া বাবা-মা জানালাার ফাকা দিয়ে দেখে।
…আমি মাকে টাকা দিই।
…বৃদ্ধাশ্রমের মা চেয়ারে বসা
…পীরের কাছে ফল,
…প্রেমিকাকে বিকাশ অথচ মা বিছানায় পড়া।

জামালপুরের বৃদ্ধ

আবু উমামা বাহিলী রা. বলেন, জনৈক ব্যক্তি নবীজিকে সা. প্রশ্ন করলেন, হে আল্লাহর নবী,

ما حقُّ الوالِدينِ على ولدِهِما؟ قالَ: هما جنَّتُكَ وَنارُكَ
ইবনে মাজা

عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرٍو عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏رِضَا الرَّبِّ فِي رِضَا الْوَالِدِ وَسَخَطُ الرَّبِّ فِي سَخَطِ الْوَالِدِ

অর্থ: হযরত আবদুল্লাহ ইবনু আমর রা. হতে বর্ণিত আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, বাবার সন্তুষ্টির মধ্যেই আল্লাহ তা’আলার সস্তুষ্টি এবং বাবার অসন্তুষ্টির মধ্যেই আল্লাহ তা’আলার অসন্তুষ্টি রয়েছে।
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৮৯৯ হাকেম: ৭২৪৯ ইবনে হিব্বান: ৪২৯

عَنْ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: ” إِنَّ لَعْنَةَ الْوَالِدَيْنِ تُبَرُّ أَيْ تَقْطَعُ أَصْلَ وَلَدِهِمَا إِذَا عَقَّهُمَا، فَمَنْ أَرْضَى وَالِدَيْهِ فَقَدْ أَرْضَى خَالِقَهُ، وَمَنْ أَسْخَطَ وَالِدَيْهِ فَقَدْ أَسْخَطَ خَالِقَهُ، وَمَنْ أَدْرَكَ وَالِدَيْهِ أَوْ أَحَدَهُمَا فَلَمْ يَبَرَّهُمَا فَدَخَلَ النَّارَ، فَأَبْعَدَهُ اللَّهُ
সূত্র: তাম্বীহুল গাফিলিন পৃ. ৬৬

আতা ইবনে ইয়াসির

আলকামা রা. ও তাঁর মা।

عَنْ أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ رَضِيَ اللَّهُ تَعَالَى عَنْهُ قَالَ كَانَ شَابٌّ عَلَى عَهْدِ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يُسَمَّى عَلْقَمَةُ وَكَانَ شَدِيدَ الِاجْتِهَادِ (اي فِي طَاعَة الله فِي الصَّلَاة وَالصَّوْم وَالصَّدَََقَة) عَظِيمَ الصَّدَقَةِ فَمَرِضَ فَاشْتَدَّ مَرَضُهُ فَبَعَثَتِ امْرَأَتُهُ إِلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنَّ زَوْجِي فِي النَّزْعِ فَأَرَدْتُ أَنْ أُعْلِمَكَ بِحَالِهِ

فَقَالَ رَسُولُ اللَّهُ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لِبِلَالٍ وَعَلِيٍّ وَسَلْمَانَ وَعَمَّارٍ اذْهَبُوا إِلَى عَلْقَمَةَ فَانْظُرُوا مَا حَالُهُ فَانْطَلَقُوا حَتَّى دَخَلُوا عَلَيْهِ فَقَالُوا لَهُ قُلْ لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ فَلَمْ يَنْطِقْ لِسَانُهُ فَلَمَّا أَيْقَنُوا أَنَّهُ هَالِكٌ بَعَثُوا بِلَالًا إِلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لِيُخْبِرَهُ بِحَالِهِ

فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ هَلْ لَهُ أَبَوَانِ فَقِيلَ لَهُ أَمَّا أَبُوهُ فَقَدْ مَاتَ وَلَهُ أُمٌّ كَبِيرَةُ السِّنِّ فَقَالَ يَا بِلَالُ انْطَلِقْ إِلَى أُمِّ عَلْقَمَةَ فَأَقْرِئْهَا مِنِّي السَّلَامَ وَقُلْ لَهَا إِنْ قَدَرْتِ عَلَى الْمَسِيرِ إِلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَإِلَّا فَقَرِّي حَتَّى يَأْتِيَكِ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ

فَأَخْبَرَهَا فَقَالَتْ نَفْسِي لِنَفْسِهِ الْفِدَاءُ أَنَا أَحَقُّ بِإِتْيَانِهِ فَأَخَذَتِ الْعَصَا فَمَشَتْ حَتَّى دَخَلَتْ عَلَى رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَلَمَّا أَنْ سَلَّمَتْ عَلَيْهِ رَدَّ عَلَيْهَا السَّلَامَ فَجَلَسَتْ بَيْنَ يَدَيْ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَقَالَ اصْدُقِينِي فَإِنْ كَذَّبْتِنِي جَاءَنِي الْوَحْيُ مِنَ اللَّهِ تَعَالَى كَيْفَ كَانَ حَالُ عَلْقَمَةَ قَالَتْ يَا رَسُولَ اللَّهِ كَانَ يُصَلِّي كَذَا وَيَصُومُ كَذَا وَكَانَ يَتَصَدَّقُ بِجُمْلَةٍ مِنَ الدَّرَاهِمِ مَا يَدْرِي كَمْ وَزْنُهَا وَمَا عَدَدُهَا قَال فَمَا حَالُكِ وَحَالُهُ قَالَتْ يَا رَسُول اللَّهِ إِنِّي عَلَيْهِ سَاخِطَةٌ وَاجِدَةٌ قَالَ لَهَا وَلِمَ ذَلِكَ قَالَتْ كَانَ يُؤْثِرُ امْرَأَتَهُ عَلَيَّ وَيُطِيعُهَا فِي الْأَشْيَاءِ وَيَعْصِينِي

فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ سُخْطُ أُمِّهِ حَجَبَ لِسَانَهُ عَنْ شَهَادَةِ أَنْ لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ ثُمَّ قَالَ لِبِلَالٍ انْطَلِقْ وَاجْمَعْ حَطَبًا كَثِيرًا حَتَّى أُحْرِقَهُ بِالنَّارِ

فَقَالَتْ يَا رَسُولَ اللَّهِ ابْنِي وَثَمَرَةُ فُؤَادِي تَحْرِقُهُ بِالنَّارِ بَيْنَ يَدَيَّ؟ فَكَيْفَ يَحْتَمِلُ قَلْبِي فَقَالَ لَهَا رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَا أُمَّ عَلْقَمَةَ فَعَذَابُ اللَّهِ أَشَدُّ وَأَبْقَى فَإِنْ سَرَّكِ أَنْ يَغْفِرَ اللَّهُ لَهُ فَارْضَيْ عَنْهُ فَوَالَّذِي نَفْسِي بِيَدِهِ لَا تَنْفَعُهُ الصَّلَاةُ وَلَا الصَّدَقَةُ مَا دُمْتِ عَلَيْهِ سَاخِطَةً فَرَفَعَتْ يَدَيْهَا وَقَالَتْ يَا رَسُولَ اللَّهِ أُشْهِدُ اللَّهَ فِي سَمَائِهِ وَأَنْتَ يَا رَسُولَ اللَّهِ وَمَنْ حَضَرَنِي أَنِّي قَدْ رَضِيتُ عَنْ عَلْقَمَةَ

فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ انْطَلِقْ يَا بِلَالُ فَانْظُرْ هَلْ يَسْتَطِيعُ عَلْقَمَةُ أَنْ يَقُولَ لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ فَلَعَلَّ أُمَّ عَلْقَمَةَ تَكَلَّمَتْ بِمَا لَيْسَ فِي قَلْبِهَا حَيَاءً مِنْ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَانْطَلَقَ بِلَالٌ فَلَمَّا انْتَهَى إِلَى الْبَابِ سَمِعَ عَلْقَمَةَ يَقُولُ لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ

فَلَمَّا دَخَلَ قَالَ يَا هَؤُلَاءِ إِنَّ سَخَطَ أُمِّ عَلْقَمَةَ حَجَبَ لِسَانَهُ
عَنِ الشَّهَادَةِ وَإِنَّ رِضَاهَا أَطْلَقَ لِسَانَهُ فَمَاتَ مِنْ يَوْمِهِ فَأَتَاهُ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَأَمَرَ بِغُسْلِهِ وَتَكْفِينِهِ وَصَلَّى عَلَيْهِ

ثُمَّ قَامَ عَلَى شَفِيرِ الْقَبْرِ وَقَالَ يَا مَعْشَرَ الْمُهَاجِرِينَ وَالْأَنْصَارِ مَنْ فَضَّلَ زَوْجَتَهُ عَلَى أُمِّهِ فَعَلَيْهِ لَعْنَةُ اللَّهِ وَلَا يُقْبَلُ مِنْهُ صَرْفٌ وَلَا عَدْلٌ يَعْنِي الْفَرَائِضَ وَالنَّوَافِلَ
সূত্র: তাম্বীহুল গাফেলীন পৃ. ৬৭

إِلَّا أَن يَتُوب إِلَى الله عز وَجل وَيحسن إِلَيْهَا وَيطْلب رِضَاهَا فرضى الله فِي رِضَاهَا وَسخط الله فِي سخطها فنسأل الله أَن يوفقنا لرضاه وَأَن يجنبنا سخطه إِنَّه جواد كريم رؤوف رَحِيم
সূত্র: আল-কাবায়ের (যাহাবী রহ.) পৃ. ৫২-৫৩

মায়ের অসন্তষ্টির ফলে সাহাবী রা. এর অবস্থা

হযরত ফকীহ্‌ আবুল লাইস রা. বর্ণনা করেন-হযরত আনাস ইবনে মালিক রা. থেকে বর্ণিত আছে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের যুগে একজন যুবক সাহাবী ছিলেন, যাঁর নাম হযরত আলকামা রা.। একজন দানশীল ব্যক্তিত্ব। তাঁর দানের প্রসিদ্ধি অত্যন্ত সুখ্যাতি ছিল। একদা তার স্ত্রী এসে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের দরবারে আরয করলেন ইয়া রাসুলাল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার স্বামী বেশী অসুস্থ, মনে হয় আর বাঁচবে না। তার পার্শ্বে তাশরীফ এনে নূরানী জবানে কালেমার তালকিন পাঠ এবং দোয়া করে দিন। হয়ত তার মৃত্যু যন্ত্রণা সহজ হতে পারে। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত আলী, হযরত সালমান ফারসী ও হযরত বেলাল (রা.)-কে নির্দেশ দিলেন তোমরা গিয়ে দেখ আলকামার কি অবস্থা। সাহাবীগণ গিয়ে হযরত আলকামাকে বললেন কালেমা পড়ুন :
لَا إِلَهَ إِلَّا اللهُ مُحَمَّدٌ رَسُولُ اللهِ
(লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলাল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)
দেখা গেল সে কালেমা শরীফ পড়তে পারছে না। হযরত আলী (রা.) বুঝতে পারলেন তার আর বেশী সময় নেই। অবসস্থা বেগতিক দেখে হযরত বেলাল (রা.)-কে হুজুরের দরবারে সংবাদ দিয়ে পাঠালেন। হযরত বেলাল (রা.) গিয়ে সব ঘটনা খুলে বলল আমরা কালেমা শরীফের তালকীন করেছি। কিন্তু সে পড়তে পারছে না। দুজাহানের মুক্তির কাণ্ডারী হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রশ্ন করলেন, তার মা বাবা কি বেঁচে আছে? হযরত বেলাল (রা.) বললেন, তার বাবা নেই মা বেঁচে আছে। অবশ্য বয়সের ভারে দুর্বল হয়ে ঘরে অবস্থান করছে। হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন তুমি গিয়ে আলকামার মাকে বল আমার কাছে আসা সম্ভব হবে কিনা? যদি না হয় আমি এখনি তার কাছে যাব। সংবাদ পেয়ে আলকামার মা বললেন যে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জন্য সমস্ত সৃষ্টি জগৎ আল্লাহ তায়ালা সৃষ্টি করেছেন তিনি আমার কাছে আসবেন তা হতে পারে না। আমিই যাব। এ বলে লাঠি হাতে আসে- আসে- মহানবীর দরবারে এসে পৌঁছলেন এবং সালাম জানালেন। আল্লাহর হাবিব তার সালাম গ্রহণপূর্বক বললেন তোমার ছেলে আলকামা কেমন ছিল। খবরদার মিথ্যা বলার চেষ্টা করবেন না। মহান আল্লাহ তায়ালা আমার কাছে ওহী দিয়ে তা প্রকাশ করে দেবেন। আলকামার মা বলল তার চরিত্র আচরণ খুবই শালীন। ইবাদত গুজার, রোজাদার, দানশীল তার মত আদর্শ মানুষ খুব কমই আছে। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন সবই ঠিক আছে! কিন্তু তোমার সাথে কেমন আচরণ করেছিল? উত্তরে বললেন, হুজুর! আমার সাথে তার আচরণ সন্তোষজনক ছিল না। আমি তার প্রতি সন্তুষ্ট নই। সে আমার চেয়ে তার স্ত্রীর প্রতি গুরুত্ব বেশী দিত। আমাকে তার স্ত্রীর তাবেদার করে রাখত। এই একটি বিষয় ছাড়া সব বিষয় ঠিক ছিল। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন এ কারণেই তার মুখে কালেমার তালকীন আসছে না। হযরত বেলাল (রা.)-কে নির্দেশ দিলেন হে বেলাল কাষ্ঠ সংগ্রহ করে আগুন জ্বালাও অতঃপর আলকামাকে আগুনে নিক্ষেপ কর, তাকে জ্বালিয়ে ফেল। আলকামার মা বললেন আমি মা হয়ে কিভাবে এ অবস্থা বরদাশত করব। হুজুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, হে আলকামার মা মহান আল্লাহ তায়ালার আগুন এ আগুনের চেয়েও ভয়াবহ হবে। তুমি যদি তার প্রতি সন্তু’ষ্ট না হও এবং তাকে ক্ষমা না কর তাহলে তার ফরজ নফল কোন এবাদতই আল্লাহর দরবারে কবুল হবে না। একথা শুনে আলকামার মা বললেন হে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আপনি সাক্ষী থাকুন আমার ছেলেকে ক্ষমা করে দিলাম এবং তার প্রতি আমি সন্তুষ্ট। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত বেলাল (রা.)-কে বললেন এখন গিয়ে দেখ আলকামার কি অবস্থ। হযরত বেলাল (রা.) আলকামার ঘরের দরজার কাছে যেতেই শুনতে পেলেন তিনি উচ্চস্বরে পাঠ করছেন –
لَا إِلَهَ إِلَّا اللهُ مُحَمَّدٌ رَسُولُ اللهِ
“লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলাল্লাহ”। অতঃপর সেই দিনেই আলকামা ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি … রাজিউন)। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সংবাদ শুনেই ছুটে যান এবং গোসল, কাফন ও দাফন শেষে কবরস্থানে দাঁড়িয়ে সাহাবায়ে কেরামের উদ্দেশ্যে এরশাদ করেন, হে আনসার ও মুহাজির! যে ব্যক্তি স্ত্রীকে মায়ের চেয়ে বেশি গুরুত্ব দিবে তার উপর আল্লাহর লা’নত হয়। তার ফরজ ও নফল ইবাদত কিছুই কবুল হয় না। আল্লামা রুমি (রাহ.) বলেন-
خدمت ما در پدر کن صبح شام ** تاکہ باشی در دو عالم نیک نام
“সকাল সন্ধ্যা নিবেদিত হোক তোমার মা বাবার চরণে
পাবে উভয় জাহানে বিজয় সফলতা আর সৌভাগ্য”
এ ঘটনা হতে শিক্ষা নেওয়া প্রয়োজন মা ক্ষমা করতে দেরী মহান আল্লাহ ক্ষমা করতে দেরী হয়নি।

বরিশালের গাড়ি চালক

পিঠটা চুলকিয়ে দাও।

ড. শামসুর রহমান

Check Also

ইতিকাফের ফযিলত عن عائشة أن النبي صلى الله عليه وسلم قال من اعتكف إيمانا واحتسابا …

Leave a Reply

Your email address will not be published.