মহররম

إِنَّ عِدَّةَ الشُّهُورِ عِندَ اللّهِ اثْنَا عَشَرَ شَهْرًا فِي كِتَابِ اللّهِ يَوْمَ خَلَقَ السَّمَاوَات وَالأَرْضَ مِنْهَا أَرْبَعَةٌ حُرُمٌ
সুরা তাওবা: ৩৬

সম্মানিত চার মাসের পরিচয়,

السَّنَةُ اثْنَا عَشَرَ شَهْرًا، مِنْهَا أَرْبَعَةٌ حُرُمٌ، ثَلاَثَةٌ مُتَوَالِيَاتٌ ذُو الْقَعْدَةِ وَذُو الْحِجَّةِ وَالْمُحَرَّمُ، وَرَجَبُ مُضَرَ الَّذِي بَيْنَ جُمَادَى وَشَعْبَانَ ‏
সহিহ বুখারী, হাদিস নং ৩১৯৭

১০ মহররম গুরুত্বপূর্ণ দিবস:

মুসা আ. ও ফিরআউন:

لأنه يوم نجى الله فيه موسى وقومه، وأهلك فيه فرعون وقومه
সহিহ বুখারী, হাদিস নং ২০০৪

নুহ আ. এর কিশতী:

…এই দিনেই হযরত নূহ আ.- এর কিশতী জূদী পর্বতে স্থির হয়েছিল।

মুহাররমের করনীয়:

১. রোযা রাখা

ক. মুহররমের রোজার ফজিলত,

أَفْضَلُ الصِّيَامِ بَعْدَ رَمَضَانَ شَهْرُ اللَّهِ الْمُحَرَّمُ وَأَفْضَلُ الصَّلاَةِ بَعْدَ الْفَرِيضَةِ صَلاَةُ اللَّيْلِ ‏
অর্থ: সহিহ মুসলিম, হাদিস: ১১৬৩

খ. ১০ তারিখের প্রমাণ:

عَنْ ابْنِ عَبَّاسٍ قَالَ مَا رَأَيْتُ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم يَتَحَرَّى صِيَامَ يَوْمٍ فَضَّلَهُ عَلَى غَيْرِهِ إِلاَّ هَذَا الْيَوْمَ يَوْمَ عَاشُورَاءَ وَهَذَا الشَّهْرَ يَعْنِي شَهْرَ رَمَضَانَ
সূত্র: সহিহ বুখারী, হাদিস: ২০০৬

আশুরার রোজার গুরুত্ব:

চারটা জিনিস রাসুল সাঃ কখনো ছাড়তেন না।

হযরত হাফসা রা. থেকে বর্ণিতঃ:
তিনি বলেন,

أَرْبَعٌ لَمْ يَكُنْ يَدَعُهُنَّ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ صِيَامَ عَاشُورَاءَ وَالْعَشْرَ وَثَلَاثَةَ أَيَّامٍ مِنْ كُلِّ شَهْرٍ وَرَكْعَتَيْنِ قَبْلَ الْغَدَاةِ
সূত্র: সুনানে আন-নাসায়ী, হাদিস: ২৪১৬

আশুরার রোযা কবে রাখবে?

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত,
তিনি বলেন,

أَمَرَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم بِصَوْمِ عَاشُورَاءَ يَوْمَ الْعَاشِرِ ‏
সূত্র: জামে’ তিরমিজি, হাদিস: ৭৫৫

অতিরিক্ত আরেকটি মিলানো:

عَبْدَ اللَّهِ، بْنَ عَبَّاسٍ رضى الله عنهما يَقُولُ حِينَ صَامَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم يَوْمَ عَاشُورَاءَ وَأَمَرَ بِصِيَامِهِ قَالُوا يَا رَسُولَ اللَّهِ إِنَّهُ يَوْمٌ تُعَظِّمُهُ الْيَهُودُ وَالنَّصَارَى ‏ فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏
فَإِذَا كَانَ الْعَامُ الْمُقْبِلُ إِنْ شَاءَ اللَّهُ صُمْنَا الْيَوْمَ التَّاسِعَ
‏قَالَ فَلَمْ يَأْتِ الْعَامُ الْمُقْبِلُ حَتَّى تُوُفِّيَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم
সূত্র: সহিহ মুসলিম, হাদিস: ১১৩৪

আগে বা পরে আরেকটি মিলানো:

ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহুর বর্ননা, নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,

صوموا يومَ عاشوراءَ، وخالفوا اليَهودَ، صوموا قبلَهُ يومًا، أو بعدَهُ يومًا
সূত্র: সহিহ ইবনে খুযাইমা খ. ৩ পৃ. ৫০৬

৯ ও ১০ তারিখ উত্তম:

হযরত আবদল্লাহ ইবনু আব্বাস রা. থেকে বর্ণিতঃ
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,

لَئِنْ بَقِيتُ إِلَى قَابِلٍ لأَصُومَنَّ التَّاسِعَ ‏
সূত্র: সহিহ মুসলিম, হাদিস: ১১৩৪

আশুরার রোজার ফজিলত:

হযরত আবূ কাতাদা রা. থেকে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,

‏ صِيَامُ يَوْمِ عَاشُورَاءَ إِنِّي أَحْتَسِبُ عَلَى اللَّهِ أَنْ يُكَفِّرَ السَّنَةَ الَّتِي قَبْلَهُ ‏
জামে’ আত-তিরমিজি, হাদিস নং ৭৫২

না রাখলে গুনাহ নেই, তবে রাখা মুস্তাহাব:

আবদুল্লাহ ইবনু ‘উমার (রাঃ) থেকে বর্ণিত,

أَنَّ أَهْلَ، الْجَاهِلِيَّةِ كَانُوا يَصُومُونَ يَوْمَ عَاشُورَاءَ وَأَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم صَامَهُ وَالْمُسْلِمُونَ قَبْلَ أَنْ يُفْتَرَضَ رَمَضَانُ فَلَمَّا افْتُرِضَ رَمَضَانُ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏
‏ إِنَّ عَاشُورَاءَ يَوْمٌ مِنْ أَيَّامِ اللَّهِ فَمَنْ شَاءَ صَامَهُ وَمَنْ شَاءَ تَرَكَهُ ‏
সহিহ মুসলিম, হাদিস: ১১২৬

২. তাওবা করা:

হযরত আলী রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেছেন,

فَإِنَّهُ شَهْرُ اللَّهِ فِيهِ يَوْمٌ تَابَ اللَّهُ فِيهِ عَلَى قَوْمٍ وَيَتُوبُ فِيهِ عَلَى قَوْمٍ آخَرِينَ ‏
জামে’ আত-তিরমিজি, হাদিস নং ৭৪১

৩. হুসাইন রা. এর শাহাদাৎ থেকে শিক্ষা নেয়া:

আশুরার দিনে বর্জনীয়,

১. চাঁদ উঠতেই ঢোল বাজানো।

صوتان ملعونان في الدنيا والآخره مزمار عند نعمة ورنة عند مصيبة وفي رواية وصَوتُ وَيلٍ عند مصيبةٍ
সূত্র: জামে সগীর, হাদিস: ৫০৩৩

২. শোক পালন:

প্রথম ১০ দিনে লাল-সাদা-কালো ধরণের বিশেষ কাপড় পরে গলায় রশি পেচিয়ে চলা।

তিন দিনের বেশি শোক পালন বৈধ নয়:

لاَ يَحِلُّ لاِمْرَأَةٍ تُؤْمِنُ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الآخِرِ أَنْ تُحِدَّ عَلَى مَيِّتٍ فَوْقَ ثَلاَثِ لَيَالٍ إِلاَّ عَلَى زَوْجٍ أَرْبَعَةَ أَشْهُرٍ وَعَشْرًا ‏”
সূত্র: সহিহ মুসলিম, হাদিস: ১৪৮৬

জাহান্নামীদের শাস্তি…

…পানি পান করানো:
…পেশাব করে পানি নেয় না এজন্য।

…প্রথম ১০ দিন লবন ছাড়া তরকারী, মাছ না খাওয়া
…নগ্ন পায়ে ঘুরে বেড়ানো।
…নারীদের সাজসজ্জা না করা,
…বিয়ে শাদী না করা।

یَـٰۤأَیُّهَا ٱلنَّبِیُّ لِمَ تُحَرِّمُ مَاۤ أَحَلَّ ٱللَّهُ لَكَۖ تَبۡتَغِی مَرۡضَاتَ أَزۡوَ ٰ⁠جِكَۚ وَٱللَّهُ غَفُورࣱ رَّحِیمࣱ
সুরা তাহরিম: ১

ইমাম হুসাইন রা. এর নামে মান্নত, ভিক্ষাবৃত্তি:

হায়াতের মালিক আল্লাহ:

إِنَّ ٱللَّهَ لَهُۥ مُلۡكُ ٱلسَّمَـٰوَ ٰ⁠تِ وَٱلۡأَرۡضِۖ یُحۡیِۦ وَیُمِیتُۚ وَمَا لَكُم مِّن دُونِ ٱللَّهِ مِن وَلِیࣲّ وَلَا نَصِیرࣲ
সুরা তাওবা: ১১৬
….ঘোড়াকে দুলহিন বানিয়ে, তার পা দুধ দিয়ে ধুয়ে পান করা ও রোগ মুক্তির উপায় মনে করা।

ٱلَّذِی خَلَقَنِی فَهُوَ یَهۡدِینِ
وَٱلَّذِی هُوَ یُطۡعِمُنِی وَیَسۡقِینِ
وَإِذَا مَرِضۡتُ فَهُوَ یَشۡفِینِ
وَٱلَّذِی یُمِیتُنِی ثُمَّ یُحۡیِینِ
সুরা শুয়ারা: ৭৮-৮১

… বিরিয়ানীর পাকিয়ে খাওয়া-দাওয়া ও বিতরণ করা।
…তা’যিয়া বানানো।
…কবর থেকে এক কোপে মাটি তুলে অন্য মাটি মিশিয়ে তাজিয়ার মধ্যে দুটি কবর খোঁড়া।
…হযরত হুসাইন রাযি. এতে সমাসীন হন’ এই বিশ্বাস
… এর পাদদেশে নযর-নিয়ায পেশ করে,
… এর সামনে হাত জোড় করে দাঁড়ায়,
…এর দিকে পিঠ প্রদর্শন করাকে বেয়াদবী মনে করে,
…তা’যিয়ার দর্শনকে ‘যিয়ারত’ বলে আখ্যা দেয়
… এতে নানা রকমের পতাকা ও ব্যানার টাঙ্গিয়ে মিছিল
…তাজিয়া ধরে মান্নত করা
…ফুল দেয়া,
…আতর-গোলাপ ছিটানো।

২. মর্সিয়া বা শোকগাঁথা পাঠ ও মজলিস করা।

…এগুলো দেখতেও না যাওয়া।

মাতম করা। বিলাপ করা।

عَنْ عَبْدِ اللَّهِ ـ رضى الله عنه ـ قَالَ قَالَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم ‏ لَيْسَ مِنَّا مَنْ ضَرَبَ الْخُدُودَ، وَشَقَّ الْجُيُوبَ، وَدَعَا بِدَعْوَى الْجَاهِلِيَّةِ
সহিহ বুখারী, হাদিস নং ১২৯৮

কারো মৃত্যুতে করনীয়,

এক.

وَلَا تَقُولُوا لِمَن يُقْتَلُ فِي سَبِيلِ اللَّهِ أَمْوَاتٌ ۚ بَلْ أَحْيَاءٌ وَلَٰكِن لَّا تَشْعُرُونَ
সুরা বাকারা ১৫৪

وَلَنَبْلُوَنَّكُم بِشَيْءٍ مِّنَ الْخَوْفِ وَالْجُوعِ وَنَقْصٍ مِّنَ الْأَمْوَالِ وَالْأَنفُسِ وَالثَّمَرَاتِ ۗ وَبَشِّرِ الصَّابِرِينَ
বাকারা-১৫৫

وَكُلٌّ عِنْدَهُ بِأَجَلٍ مُسَمًّى، فَلْتَصْبِرْ وَلْتَحْتَسِبْ
সহিহ বুখারী, হাদিস নং ১২৮৪

বিলাপের সূচনা,

…সর্বপ্রথম ৩৫২ হিজরীতে মুঈযযুদ দাওলা দাইলামী (একজন শিয়া) দশ মুহাররমে শুধু বাগদাদে হযরত হুসাইন রাযি.-এর জন্য মাতম করার হুকুম জারি করে।

….এরপর ৩৬৩ হিজরীতে আল-মুঈযযু লিদীনিল্লাহি ফাতিমী  (বেদ্বীন কট্টর শিয়া) মিশরেও এই হুকুম জারি করে।

Check Also

মানুষের সম্মান ও মানবরুপী পশু

  মানুষের চেয়ে কালার, শক্তি, আওয়াজ উচ্চ বা মিষ্টি, বাচ্চা দেয়ার দিক থেকে এগিয়ে অনেক …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.