কুসংস্কার

খাবার এক লুকমা খেলে সে নদীতে ডুবে মারা যায়?

  সমাজে প্রচলিত রয়েছে যে, “খাবার এক লুকমা খেলে সে নদীতে ডুবে মারা যায়।” এ ধরণের বিশ্বাস রাখা পবিত্র কুরআনের আয়াত অস্বীকার করার নামান্তর, যা প্রকাশ্য কুফরী। কারণ হায়াত-মউত এক মাত্র আল্লাহর হাতে। নির্দিষ্ট সময়ে সবার মৃত্যু আসবে। আল্লাহ তা’য়ালা বলেছেন, وَلِكُلِّ أُمَّةٍ أَجَلٌ فَإِذَا جَاء أَجَلُهُمْ لاَ يَسْتَأْخِرُونَ سَاعَةً وَلاَ يَسْتَقْدِمُونَ অর্থ: প্রত্যেক সম্প্রদায়ের একটি মেয়াদ রয়েছে। যখন তাদের …

Read More »

গায়ে ঝাড়ু লাগলে জ্বর আসে?

  গায়ে ঝাড়ু লাগলে জ্বর হয় বা অসুস্থতা আসে, এটা হাদিস বিরোধী কথা। কারণ হাদিস শরীফে এসেছে, عَنْ عَائِشَةَ رَضِيَ اللهُ عَنْهَا عَنْ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ الْحُمَّى مِنْ فَيْحِ جَهَنَّمَ فَأَبْرِدُوْهَا بِالْمَاءِ অর্থ: হযরত আয়েশা রা. হতে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘জ্বর হয় জাহান্নামের উত্তাপ থেকে। কাজেই তোমরা তা পানি দিয়ে ঠান্ডা কর।’ সূত্র: সহিহ …

Read More »

স্বামীর নাম মুখে নিলে অমঙ্গল।

  সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে, ”স্বামীর নাম মুখে নেয়া যাবে না। এতে স্বামীর অমঙ্গল হয়।” এটা শিরকী বিশ্বাস। কারণ অশুভলক্ষণ বা কুলক্ষণ বলে ইসলামে কিছু নেই। এসব সুস্পষ্ট শিরক। কারণ হাদিস শরীফে এসেছে, عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ مَسْعُودٍ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم الطِّيَرَةُ مِنَ الشِّرْكِ অর্থ: হহযরত আবদুল্লাহ ইবনু মাসউদ রা. হতে বর্ণিত আছে, …

Read More »

১২. পাতিলে বা পাটায় ভাত খেলে মেয়ে সন্তান জন্ম নেয়।

  সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে, “পাতিলে বা কড়াইয়ে ভাত খেলে অথবা পাটায় মোছা ভাত খেলে মেয়ে সন্তান জন্ম নেয়।” এটা ডাহা মিথ্যা কথা। কোন মুসলিম এ ধরণের কুফরী কথা বিশ্বাস করতে পারে না। কারণ ছেলে-মেয়ে সব কিছু দেওয়ার মালিক একমাত্র আল্লাহ। মহান আল্লাহ বলেন, هِ مُلۡکُ السَّمٰوٰتِ وَ الۡاَرۡضِ ؕ یَخۡلُقُ مَا یَشَآءُ ؕیَهَبُ لِمَنۡ یَّشَآءُ اِنَاثًا وَّ …

Read More »

১১. ভাঙা আয়নায় মুখ দেখা।

সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে,” “ভাঙা আয়নায় মুখ দেখলে বাড়ির অমঙ্গল হয়৷ ফলে পরিবারের প্রিয়জন অসুস্থ হতে পারে। আবার কোথাও চালু আছে “হায়াত কমে যায়।” এটা শিরকী বিশ্বাস। কারণ হায়াত কমানোর মালিক একমাত্র আল্লাহ, আর অশুভলক্ষণ বলতে তো ইসলামে কিছু নেই। এসব সুস্পষ্ট শিরক। কারণ হাদিস শরীফে এসেছে, عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ مَسْعُودٍ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله …

Read More »

১০. হঠাত্‍ বাম চোখ কাঁপলে দুঃখ আসা।

  সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে,” হঠাত্‍ বাম চোখ কাঁপলে দুঃখ আসে। এটা শিরকী বিশ্বাস। কারণ বিপদ-আপদ সব কিছুই তাকদীরের ফায়সালা যা আগেই লিপিবদ্ধ করেছেন আল্লাহ তা’য়ালা। আল্লাহ তা’য়ালা বলেন, مَاۤ أَصَابَ مِن مُّصِیبَةࣲ فِی ٱلۡأَرۡضِ وَلَا فِیۤ أَنفُسِكُمۡ إِلَّا فِی كِتَابࣲ مِّن قَبۡلِ أَن نَّبۡرَأَهَاۤۚ إِنَّ ذَ ٰلِكَ عَلَى ٱللَّهِ یَسِیرࣱ অর্থ: পৃথিবীতে এবং ব্যক্তিগতভাবে তোমাদের উপর কোন বিপদ …

Read More »

৯. দা, কাঁচি বা ছুরি ডিঙ্গিয়ে গেলে তা প্রনাম করা।

সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে, “দা-কাঁচি বা ছুরি ডিঙ্গিয়ে গেলে তা প্রনাম না করলে ক্ষতি হয়” কিছু অঞ্চলে প্রচলন রয়েছে, মেয়েরা এগুলো ডিঙ্গিয়ে গেলে জরায়ুর পর্দা বড় হয়ে যায় ।” এটা শিরক। কারণ ক্ষতি করার ক্ষমতা ছুরি বা দা-কাঁচির নেই। পৃথিবীতে যা ঘটে সব একমাত্র আল্লাহর পক্ষ থেকে। মহান আল্লাহ বলেন, بَلۡ لِّلّٰهِ الۡاَمۡرُ جَمِیۡعًا অর্থাৎ বরং সব কাজ …

Read More »

৮. মহিলাদের হাতে বালা বা চুড়ি না পড়লে স্বামীর হায়াৎ কমে যায়।

  সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে, “মহিলাদের হাতে বালা বা চুড়ি না পড়লে সে হাত দিয়ে স্বামীকে পানি দিলে স্বামীর হায়াৎ কমে যায়।” এটা একটি জঘন্য কুফরী। যার সাথে মুসলিমদের বিশ্বাসের সাথে কোনো সম্পর্কই নেই, বরং পুরোটাই কুসংস্কার। কারণ হায়াতের মালিক একমাত্র আল্লাহ। আল্লাহ তা’য়ালা বলেন, وَ لِکُلِّ اُمَّة اَجَلٌ ۚ فَاِذَا جَآءَ اَجَلُهُمۡ لَا یَسۡتَاۡخِرُوۡنَ سَاعَة وَّ لَا …

Read More »

৭. স্ত্রীর নাকে নাক ফুল না দিলে স্বামীর অমঙ্গল হয়?

  সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে, “স্ত্রীর নাকে নাক ফুল না দিলে স্বামীর অমঙ্গল হয়।” এই অমঙ্গল বা কুলক্ষণে বিশ্বাস করা কোনো মুসলিমের কাজ নয়। কারণ হাদিস শরীফে এসেছে, عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ مَسْعُودٍ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم الطِّيَرَةُ مِنَ الشِّرْكِ অর্থ: হহযরত আবদুল্লাহ ইবনু মাসউদ রা. হতে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি …

Read More »

৬. ঢেঁকির ওপর বসে আহার করলে বউ মারা যায়?

  সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে, “ঢেঁকির ওপর বসে আহার করলে বউ মারা যায়।” এটা একটি জঘন্য কুসংস্কার। যার সাথে মুসলিমদের বিশ্বাসের সাথে কোনো সম্পর্কই নেই, বরং পুরোটাই কুফরী মতবাদ। কারণ হায়াৎ ও মউত পুরোটাই আল্লাহর ইচ্ছাধীন। আল্লাহ তা’য়ালা বলেন, وَ لِکُلِّ اُمَّة اَجَلٌ ۚ فَاِذَا جَآءَ اَجَلُهُمۡ لَا یَسۡتَاۡخِرُوۡنَ سَاعَة وَّ لَا یَسۡتَقۡدِمُوۡنَ প্রত্যেক সম্প্রদায়ের একটি মেয়াদ রয়েছে। …

Read More »