নামাজের পর কুরবানীর পশু জবাহ করতে হবে।

 

কুরবানীর দিন ঈদের নামাজ শেষ করার পর কুরবানীর পশু জবাহ করতে হবে। কেননা রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন,

قال جندب بن سفيان البجلي رضى الله عنه صَلّى النبيُّ ﷺ يَومَ النَّحْرِ ثُمَّ خَطَبَ ثُمَّ ذَبَحَ فَقالَ مَن ذَبَحَ قَبْلَ أنْ يُصَلِّيَ فَلْيَذْبَحْ أُخْرى مَكانَها ومَن لَمْ يَذْبَحْ فَلْيَذْبَحْ باسْمِ اللَّهِ

অর্থঃ সাহাবি জুনদাব ইবনে সুফিয়ান আল-বাজালী (রা.) বলেছেন, নবী কারীম (সা.) কুরবানীর দিন সালাত আদায় করলেন অত:পর খুতবা দিলেন তারপর পশু যবেহ করলেন। অতঃপর তিনি বলেন, যে ব্যক্তি সালাতের পূর্বে যবেহ করেছে সে যেন আবার অন্য স্থানে যবেহ করে। আর যে যবেহ করেনি সে যেন আল্লাহর নামে যবেহ করে।
সূত্রঃ সহিহ বুখারী হাদীস: ৯৮৫

عَنِ الْبَرَاءِ قَالَ ضَحَّى خَالِي أَبُو بُرْدَةَ قَبْلَ الصَّلاَةِ فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم تِلْكَ شَاةُ لَحْمٍ فَقَالَ يَا رَسُولَ اللَّهِ إِنَّ عِنْدِي جَذَعَةً مِنَ الْمَعْزِ فَقَالَ ‏ضَحِّ بِهَا وَلاَ تَصْلُحُ لِغَيْرِكَ ‏ثُمَّ قَالَ ‏مَنْ ضَحَّى قَبْلَ الصَّلاَةِ فَإِنَّمَا ذَبَحَ لِنَفْسِهِ وَمَنْ ذَبَحَ بَعْدَ الصَّلاَةِ فَقَدْ تَمَّ نُسُكُهُ وَأَصَابَ سُنَّةَ الْمُسْلِمِينَ

অর্থঃ হযরত বারা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমার মামা আবূ বুরদা (রাঃ) সালাতের পূর্বে কুরবানী করলে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ ওটা গোশতের বকরী। তিনি বললেন, ইয়া রাসুলাল্লাহ আমার নিকট ছয় মাসের একটি বকরীর বাচ্চা আছে। তিনি বললেনঃ সেটি যবেহ কর। তুমি ছাড়া অন্য কারো জন্য তা ঠিক হবে না। এরপর তিনি বললেনঃ যে ব্যক্তি সালাতের পূর্বে যবেহ করলো, সে কেবল নিজের জন্যই যবেহ করলো। আর যে ব্যক্তি সালাতের পর যবেহ করলো, তার কুরবানী পূর্ণ হয়ে গেল এবং সে মুসলমানদের তরীকা অনুযায়ী কাজ করলো।
সূত্রঃ সহিহ মুসলিম হাদিস: ১৯৬১ বুখারী: ৫৫৫৬

عَنِ الْبَرَاءِ بْنِ عَازِبٍ قَالَ قَالَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم إِنَّ أَوَّلَ مَا نَبْدَأُ فِي يَوْمِنَا هَذَا أَنْ نُصَلِّيَ، ثُمَّ نَرْجِعَ فَنَنْحَرَ فَمَنْ فَعَلَ ذَلِكَ فَقَدْ أَصَابَ سُنَّتَنَا وَمَنْ نَحَرَ قَبْلَ الصَّلاَةِ فَإِنَّمَا هُوَ لَحْمٌ قَدَّمَهُ لأَهْلِهِ لَيْسَ مِنَ النُّسْكِ فِي شَىْءٍ

অর্থঃ হযরত বারাআ ইবনু ‘আযিব (রাযি.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ আজকের এ দিনে আমাদের প্রথম কাজ হচ্ছে সালাত আদায় করা। অতঃপর আমরা ফিরে আসব এবং কুরবানী করব। কাজেই যে ব্যক্তি তা করল, সে আমাদের নিয়ম পালন করল। যে ব্যক্তি সালাতের পূর্বে কুরবানী করল, তা শুধু গোশ্ত বলেই গণ্য হবে, যা সে পরিবারবর্গের জন্য পূর্বেই করে ফেলেছে। এতে কুরবানীর কিছুই নেই।
সূত্রঃ সহিহ বুখারী হাদিস: ৯৭৬

লেখক

মুফতী রিজওয়ান রফিকী

পরিচালক: মাদরাসা মারকাযুন নূর বোর্ড বাজার,গাজীপুর সদর।

Check Also

মহিলারা কুরবানীর পশু যবাহ করতে পারবে?

  মুসলিম মহিলারা কুরবানীর পশু যবাহ করতে পারবে। যদি তারা যবাহের নিয়ম ভালোভাবে জানে। তবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.