প্রেক্ষাপট

শাহে দৌলা

জিলহজ্ব মাসের প্রথম ১০ দিনের ফযিলত

إِنَّ عِدَّةَ الشُّهُورِ عِندَ اللّهِ اثْنَا عَشَرَ شَهْرًا فِي كِتَابِ اللّهِ يَوْمَ خَلَقَ السَّمَاوَات وَالأَرْضَ مِنْهَا أَرْبَعَةٌ حُرُمٌ

চারটি মাস কি কি?

আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. বলেন,

مُحَرَّمٌ وَرَجَبٌ وَذُو الْقَعْدَةِ وَذُو الْحِجَّةِ

والفجر، وليال عشر

১০ রাত মানে কি?

الْمُرَادُ بِهَا عَشَرُ ذِي الْحِجَّةِ كَمَا قَالَهُ ابْنُ عَبَّاسٍ وَابْنُ الزُّبَيْرِ وَمُجَاهِدٌ وَغَيْرُ وَاحِدٍ مِنَ السَّلَفِ وَالْخَلَفِ

ফযিলত:

জাবির রা. হতে বর্ণিত হয়েছে,

ما من أيام أفضل عند الله من أيام عشر ذي الحجة

عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏مَا مِنْ أَيَّامٍ الْعَمَلُ الصَّالِحُ فِيهِنَّ أَحَبُّ إِلَى اللَّهِ مِنْ هَذِهِ الأَيَّامِ الْعَشْرِ فَقَالُوا يَا رَسُولَ اللَّهِ وَلاَ الْجِهَادُ فِي سَبِيلِ اللَّهِ فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏وَلاَ الْجِهَادُ فِي سَبِيلِ اللَّهِ إِلاَّ رَجُلٌ خَرَجَ بِنَفْسِهِ وَمَالِهِ فَلَمْ يَرْجِعْ مِنْ ذَلِكَ بِشَيْءٍ

 

আমল

এক. বেশি বেশি যিকির-আযকার করা।

عن عبدالله بن عمر قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ما من أيامٍ أعظمُ عندَ اللهِ ولا أحبَّ إليه العملُ فيهنَّ من هذهِ الأيامِ العشرِ فأكثروا فِيهنَّ من التهليلِ والتكبيرِ والتحميدِ

দুই. চুল, নখ, মোচ ইত্যাদি না কাটা।

عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم قَالَ إِذَا رَأَيْتُمْ هِلاَلَ ذِي الْحِجَّةِ وَأَرَادَ أَحَدُكُمْ أَنْ يُضَحِّيَ فَلْيُمْسِكْ عَنْ شَعْرِهِ وَأَظْفَارِهِ

أُمِرْتُ بِيَوْمِ الْأَضْحَى عِيدًا جَعَلَهُ اللَّهُ عَزَّ وَجَلَّ لِهَذِهِ الْأُمَّةِ، فَقَالَ الرَّجُلُ أَرَأَيْتَ إِنْ لَمْ أَجِدْ إِلَّا مَنِيحَةً أُنْثَى أَفَأُضَحِّي بِهَا قَالَ لَا وَلَكِنْ تَأْخُذُ مِنْ شَعْرِكَ وَتُقَلِّمُ أَظْفَارَكَ وَتَقُصُّ شَارِبَكَ وَتَحْلِقُ عَانَتَكَ فَذَلِكَ تَمَامُ أُضْحِيَّتِكَ عِنْدَ اللَّهِ عَزَّ وَجَلَّ.

أَنَّ ابْنَ عُمَرَ مَرَّ بِامْرَأَةٍ تَأْخُذُ مِنْ شَعْرِ ابْنِهَا فِي أَيَّامِ الْعَشْرِ فَقَالَ لَوْ أَخَّرْتِيهِ إِلَى يَوْمِ النَّحْرِ كَانَ أَحْسَنَ

তিন. ঈদের দিন ছাড়া বাকি নয় দিন রোযা রাখা।

عَنْ بَعْضِ أَزْوَاجِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَتْ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَصُومُ تِسْعَ ذِي الْحِجَّةِ وَيَوْمَ عَاشُورَاءَ وَثَلَاثَةَ أَيَّامٍ مِنْ كُلِّ شَهْرٍ أَوَّلَ اثْنَيْنِ مِنَ الشَّهْرِ وَالْخَمِيسَ

عن حفصة رضى الله عنها قالت أربع لم يكن يدعهن النبي صلى الله عليه وسلم صيام عاشوراء والعشر وثلاثة أيام من كل شهر والركعتين قبل الغداة

চার. নয় যিলহজ্ব রোযা রাখা মুস্তাহাব।

রোযার ফযিলত

عَنْ أَبِي قَتَادَةَ  قَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ صِيَامُ يَوْمِ عَرَفَةَ أَحْتَسِبُ عَلَى اللهِ أَنْ يُكَفِّرَ السَّنَةَ الَّتِي قَبْلَهُ وَالسَّنَةَ الَّتِي بَعْدَهُ

 

من صام يوم عرفة غفر له سنتين متتابعتين

 

আরাফার দিন মানে কত তারিখ?

ইয়াওমে আরাফা’ মানে যে ৯ জিলহজ্ব

প্রমাণ-১

হাজিদের জন্য নয়’

عَنْ أُمِّ الْفَضْلِ بِنْتِ الْحَارِثِ أَنَّ نَاسًا تَمَارَوْا عِنْدَهَا يَوْمَ عَرَفَةَ فِي صَوْمِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم فَقَالَ بَعْضُهُمْ هُوَ صَائِمٌ وَقَالَ بَعْضُهُمْ لَيْسَ بِصَائِمٍ فَأَرْسَلَتْ إِلَيْهِ بِقَدَحِ لَبَنٍ وَهُوَ وَاقِفٌ عَلَى بَعِيرِهِ فَشَرِبَهُ

কারণ কি?

যেহেতু ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ বিধান যেমন ইয়াওমিন নাহর।

দুই.
টাইম আগে পরে

তিন.
তাকবীরে তাশরীক’

عن علي رضي  الله عنه أنه كان يكبر بعد صلاة الفجر يوم عرفة إلى صلاة العصر من آخر أيام التشريق ويكبر بعد العصر

চার.

عن ابنِ عبّاسٍ أنَّ الأيّامَ المعلوماتِ عشرُ ذي الحجَّةِ آخرُها يومُ النَّحرِ

পাঁচ.

ইয়াওমের আরাফার পরদিন ঈদ

ছয়.
চাঁদপুরের ঈদ

তাকবীরে তাশরীক পড়া

وَاذْكُرُواْ اللّهَ فِي أَيَّامٍ مَّعْدُودَاتٍ

হযরত আলীর রা. আমল:

عن علي رضي  الله عنه أنه كان يكبر بعد صلاة الفجر يوم عرفة إلى صلاة العصر من آخر أيام التشريق ويكبر بعد العصر

কোন শব্দে তাকবীর বলবে?

الله أكبر، الله أكبر، لا إله إلاالله والله أكبر، الله أكبر ولله الحمد

সামর্থবানদের জন্য কোরবানী ওয়াজীব না সুন্নাত?

فصل لربك وانحر
সুরা কাউসার-২

২. প্রসিদ্ধ মুফাসসির আল্লামা কুরতুবী রহ. এবং আল্লামা সানাউল্লাহ পানিপথী রহ. এই আয়াতের অধীনে লিখেছেন,

قال عكرمة وعطاء و قتادة فصل لربك وانحر صلاة العيد يوم النحر ونحر نسكك فعلى هذا يثبت به وجوب صلاة العيد والأضحية

৩. ইমাম আবূ বকর জাসসাস রহ.

هذا التأويل يتضمن معنين أحدهما إيجاب صلاة الأضحى والثاني وجوب الأضحية

 قال رسول الله صلي الله عليه وسلم على كلِّ أهلِ بيتٍ أُضحيَةٌ

আদেশসূচক

عن جُنْدَبَ بْن سُفْيَانَ الْبَجَلِيّ قَالَ شَهِدْتُ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم يَوْمَ النَّحْرِ فَقَالَ مَنْ ذَبَحَ قَبْلَ أَنْ يُصَلِّيَ فَلْيُعِدْ مَكَانَهَا أُخْر‘ى وَمَنْ لَمْ يَذْبَحْ فَلْيَذْبَحْ

কন্টিনিউ

قد رَأيتُ الَّذي صَنعتُم وَلَم يَمنعْني مِنَ الخُروجِ إليكُم إلَّا أَنَّني خَشيتُ أن تُفرَضَ عَليكُم وذلكَ في رَمضانَ

عن عبدالله بن عمر أقامَ رسولُ اللهِ صلَّى اللهُ عليهِ وسلَّمَ بالمدينةِ عشرَ سنينَ يُضحِّي

ধমক

عن أبي هريرة قال قال رسول الله صلى الله عليه و سلم من كان له سعة ولم يضح فلا يقربن مصلانًا

قال الزيلعي ومثل هذا الوعيد لا يلحق بترك غير الواجب

সুন্নাত বলার দলীল

عن أنس بن مالك قال قال قال رسول الله صلى الله عليه و سلم ومن ذبحَ بعدَ الصَّلاةِ فقد تمَّ نسُكُه، وأصابَ سنَّةَ المسلمينَ

 

وَقَالَ أَنَسٌ كَانَ النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَنْحَرُ ثُمَّ يُصَلِّي فَأُمِرَ أَنْ يُصَلِّيَ ثُمَّ يَنْحَرُ

পরিবারের একজন করলে হবে?

عن أبي هريرة قال قال رسول الله صلى الله عليه و سلم من كان له سعة ولم يضح فلا يقربن مصلانًا
সূত্রঃ জামে সগীর হাদিস: ৮৯০৪

কুরবানী না দিয়ে টাকা দান করা যাবে?

فصل لربك وانحر
সুরা কাউসার-২

عن أبي هريرة قال قال رسول الله صلى الله عليه و سلم من كان له سعة ولم يضح فلا يقربن مصلانًا
সূত্রঃ জামে সগীর-৮৯০৪ ইবনে মাযা-২১২৩ মুসনাদে অাহমাদ-৮২৭৩ অাত-তামহীদ- খ:২৩ পৃ: ১৯০ অাল-ইযতিযকার খ:৪ পৃ: ২২৮ (হাদিসটি সহিহ।

নেকির দিক থেকে

عَنْ عَائِشَةَ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم قَالَ ‏مَا عَمِلَ آدَمِيٌّ مِنْ عَمَلٍ يَوْمَ النَّحْرِ أَحَبَّ إِلَى اللَّهِ مِنْ إِهْرَاقِ الدَّمِ إِنَّهَا لَتَأْتِي يَوْمَ الْقِيَامَةِ بِقُرُونِهَا وَأَشْعَارِهَا وَأَظْلاَفِهَا وَإِنَّ الدَّمَ لَيَقَعُ مِنَ اللَّهِ بِمَكَانٍ قَبْلَ أَنْ يَقَعَ مِنَ الأَرْضِ فَطِيبُوا بِهَا نَفْسًا ‏
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৪৯৩

কুরবানীর পশু হৃষ্টপুষ্ট হওয়া উত্তম।

لَنْ تَنَالُوا الْبِرَّ حَتّٰی تُنْفِقُوْا مِمَّا تُحِبُّوْنَ وَ مَا تُنْفِقُوْا مِنْ شَیْءٍ فَاِنَّ اللهَ بِهٖ عَلِیْمٌ

সূরাঃ আলে ইমরান আয়াত: ৯২

أَنّ رَسُولَ اللهِ صَلّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلّمَ ضَحّى بِكَبْشَيْنِ سَمِينَيْنِ عَظِيمَيْنِ أَمْلَحَيْنِ أَقْرَنَيْنِ موجوءين

অর্থ: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দুটি বড় শিংবিশিষ্ট সাদা-কালো বর্ণের হৃষ্টপুষ্ট দুম্বা জবাই করেছেন।
সূত্র: মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ১৫০৬৪ সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস ৩১২২ আলমগীরী খ. ৫ পৃ. ৩০০, বাদায়েউস সানায়ে খ. ৪ পৃ. ২২৩

কুরবানীর পশুর বয়স কত হতে হবে?

উট ৫ বছর গড়িয়ে ৬ বছরে
গরু বা মহিষ ২ বছর গড়িয়ে ৩ বছরে
ভেড়া, দুম্বা বা ছাগল ১ বছর গড়িয়ে ২ বছরে
ভেড়া বা দুম্বা ৬ মাসের হলেও চলবে। হ্নষ্টপুষ্ট
ছাগলের বয়স ১ বছরের কম হলে কোনো অবস্থাতেই তা দ্বারা কুরবানী জায়েয হবে না।

عَنْ جَابِرٍ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏لاَ تَذْبَحُوا إِلاَّ مُسِنَّةً إِلاَّ أَنْ يَعْسُرَ عَلَيْكُمْ فَتَذْبَحُوا جَذَعَةً مِنَ الضَّأْنِ ‏
সূত্র: সহিহ মুসলিম হাদীস: ১৯৬৩

অমুসলিমদের থেকে পশু ক্রয় করে কুরবানী দিলে হবে?

وَلِكُلِّ أُمَّةٍ جَعَلْنَا مَنسَكًا لِيَذْكُرُوا اسْمَ اللَّهِ عَلَى مَا رَزَقَهُم مِّن بَهِيمَةِ الْأَنْعَامِ
সুরাঃ হজ্ব আয়াত: ৩৪

——————————————–

১. কুরবানী কার নামে দেওয়া উত্তম? ব্যক্তির নামে না নবীজির সা. নামে না আল্লাহর নামে?
…মো. আবু সাঈদ

কুরবানী হতে হবে আল্লাহর জন্য

قُلْ إِنَّ صَلاَتِي وَنُسُكِي وَمَحْيَايَ وَمَمَاتِي لِلّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ
সুরাঃ আনআম আয়াত: ১৬২

নাম হতে হবে কুরবানী দাতার।

باسْمِ الله اللَّهُمَّ تَقَبَّلْ مِن مُحَمَّدٍ وَآلِ مُحَمَّدٍ وَمِنْ أُمَّةِ مُحَمَّدٍ ثُمَّ ضَحّى بهِ
সূত্র: সহিহ মুসলিম হাদিস: ১৯৬৭

তবে নবীজির পক্ষ থেকেও কুরবানী করা যাবে

কারণ হানাশ রহ. বলেন,

رَأَيْتُ عَلِيّا يُضَحِّي بِكَبْشَيْنِ فَقُلْتُ مَا هَذَا فَقَالَ إِنّ رَسُولَ اللهِ صلى الله عليه وسلم أَوْصَانِي أَنْ أُضَحِّيَ عَنْهُ فَأَنَا أُضَحِّي عَنْهُ
সূত্র: সুনানে আবু দাউদ হাদীস: ২৭৯০ জামে তিরমিযী: ১৪৯৫ মুসনাদে আহমাদ: ১২৮৬

২. একা কুরবানী দিতে না পারলে ভাগে কুরবানী করা শরীয়তসম্মত কি না?
…মো. হাসিব আহমাদ

ছাগল,দুম্বা ভেড়া ১ জন হতে হবে।

আবদুল্লাহ ইবনুল মুবারাক রহ. বলেন,

لاَ تُجْزِئُ الشَّاةُ إِلاَّ عَنْ نَفْسٍ وَاحِدَةٍ
সূত্র: নাইলুল আওতার খ: ৫ পৃ: ১৩৭ ই’লাউস সুনান খ: ১৭ পৃ: ২০৯

উট,গরু,মহিষ সাত জন হতে পারে।

عَنْ جَابِرِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ الْبَقَرَةُ عَنْ سَبْعَةٍ وَالْجَزُورُ عَنْ سَبْعَةٍ
সূত্র: সুনান আবু দাউদ হাদিস: ২৮০৮ জামে তিরমিযি হাদিস: ৯০৪ সহীহ ইবনে হিব্বান: ৪০০৬ সহীহ ইবনে খুযাইমা: ২৯০১

সর্বনিন্ম-সর্বোচ্চ কতজন শরিক হতে পারবে?

وَلَا شَكَّ فِي جَوَازِ بَدَنَةٍ أَوْ بَقَرَةٍ عَنْ أَقَلَّ مِنْ سَبْعَةٍ بِأَنْ اشْتَرَكَ اثْنَانِ أَوْ ثَلَاثَةٌ أَوْ أَرْبَعَةٌ أَوْ خَمْسَةٌ أَوْ سِتَّةٌ فِي بَدَنَةٍ أَوْ بَقَرَةٍ

অর্থ: একটি উট বা গরুতে সাত শরীকের কম তথা ২/৩/৪/৫/৬ শরীকে কুরবানী দেয়ার বৈধতার ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই।
সূত্র: বাদায়ে সানায়ে খ: ৬ পৃ: ৩০৪

শরীক হারাম টাকা জানা থাকলে

عن أبي هريرة عن النبي صلى الله عليه وآله وسلم أنه قال من اشترى سرقة وهو يعلم أنها سرقة فقد شرك في عارها وإثمها
সূ্ত্র: জামে সগীর হাদিস: ৮৪২৪

وَلاَ تَلْبِسُواْ الْحَقَّ بِالْبَاطِلِ وَتَكْتُمُواْ الْحَقَّ وَأَنتُمْ تَعْلَمُونَ
সুরাঃ বাকারা আয়াত: ৪২

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏أَيُّهَا النَّاسُ إِنَّ اللَّهَ طَيِّبٌ لاَ يَقْبَلُ إِلاَّ طَيِّبًا
সূত্র: সহিহ মুসলিম হাদিস: ১০১৫

অজানা থাকলে।

لاَ يُكَلِّفُ اللّهُ نَفْسًا إِلاَّ وُسْعَهَا لَهَا مَا كَسَبَتْ وَعَلَيْهَا مَا اكْتَسَبَتْ
সুরাঃ বাকারা আয়াত: ২৮৬

কারো নিয়তে গলদ থাকলে কুরবানী।

إِنَّمَا الأَعْمَالُ بِالنِّيَّاتِ
সূত্র: সহিহ বুখারী হাদিস: ১

৩. বাজার থেকে কুরবানীর পশু ক্রয় করে আনার সময় কেউ দাম জানতে চাইলে বলা যাবে কি না?
….মো. ইস্রাফীল মিয়া

وَاتْلُ عَلَيْهِمْ نَبَأَ ابْنَيْ آدَمَ بِالْحَقِّ إِذْ قَرَّبَا قُرْبَانًا فَتُقُبِّلَ مِن أَحَدِهِمَا وَلَمْ يُتَقَبَّلْ مِنَ الآخَرِ
সুরাঃ মায়েদা আয়াত: ২৭

৪. গোশত বন্টনের কোনো শরীয়তসম্মত নিয়ম আছে কি না?
…মিসেস লুবাবা হাসিব।

জবাব:

রদ্দুল মুহতারে আসছে,

وَالْأَفْضَلُ أَنْ يَتَصَدَّقَ بِالثُّلُثِ وَيَتَّخِذَ الثُّلُثَ ضِيَافَةً لِأَقْرِبَائِهِ وَأَصْدِقَائِهِ وَيَدَّخِرَ الثُّلُثَ
সূত্র: রদ্দুল মুহতার খ: ৯ পৃ: ৪৭৪ বাদায়ে সানায়ে খ:৪ পৃ:২২৪

عن ابن مسعود قال امرنا رسول الله صلی الله علیه وسلم ان نأکل منها ثلثا ونتصدق بثلثها و نطعم الجیران ثلثها
সূত্র: ইলাউস সুনান খ: ১৭ পৃ: ২৬২ (যয়ীফ)

عن ابن عباس في صفة أضحية النبي صلى الله عليه وسلم قال يطعم أهل بيته الثلث ويطعم فقراء جيرانه الثلث ويتصدق على السؤال بالثلث
সূত্র: ইলাউস সুনান খ: ১৭ পৃ: ২৬২ (হাদিস: হাসান)

إنِّي كنتُ نهيتُكُم عن ادِّخارِ لحومِ الأضاحي فوقَ ثلاثٍ فكُلوا وأطْعِموا وتصَدَّقوا
সূ্ত্র: তাফসীরে ইবনে কাসীর খ:৫ পৃ:৪২৬

৫. কুরবানীর গোশত সব রেখে নিজেরা খাওয়া যাকে কিনা?
…সরদার মাহফুজ

জবাব:

وَلَوْ حَبَسَ الْكُلَّ لِنَفْسِهِ جَازَ لِأَنَّ الْقُرْبَةَ فِي الْإِرَاقَةِ وَالتَّصَدُّقِ بِاللَّحْمِ تَطَوُّعٌ
সূত্র: রদ্দুল মুহতার খ. ৯ পৃ. ৪৭৪ ফাতাওয়া আলমগিরি খ. ৫ পৃ. ৩৭০-৩৭১ বাদায়েউস সানায়ে খ. ৪ পৃ. ২২৪ ই’লাউস সুনান খ. ১৭ পৃ. ২৬২

প্রমাণ:

فَكُلُوا مِنْهَا وَأَطْعِمُوا الْبَائِسَ الْفَقِيرَ
সুরা: হজ্ব আয়াত: ২৮

তাফসীর:

এক. ইব্রাহীম নাখয়ী রহ. বলেন,

كَانَ الْمُشْرِكُونَ لَا يَأْكُلُونَ مِنْ ذَبَائِحِهِمْ فَرُخِّصَ لِلْمُسْلِمِينَ، فَمَنْ شَاءَ أَكَلَ، وَمَنْ شَاءَ لَمْ يَأْكُلْ. وَرُوِيَ عَنْ مُجَاهِدٍ، وَعَطَاءٍ نَحْوُ ذَلِكَ
সূত্র: শরহুল বুখারী (ইবনে বাত্তাল) খ. ৬ পৃ. ৩৩

ইবনে জারীর তাবারী রহ. বলেন,

وَهَذَا الْأَمْرُ مِنَ اللَّهِ جَلَّ ثَنَاؤُهُ أَمْرُ إِبَاحَةٍ لَا أَمْرُ إِيجَابٍ ، وَذَلِكَ أَنَّهُ لَا خِلَافَ بَيْنِ جَمِيعِ الْحُجَّةِ أَنَّ ذَابِحَ هَدْيَهُ أَوْ بَدَنَتَهُ هُنَالِكَ إِنْ لَمْ يَأْكُلْ مِنْ هَدْيِهِ أَوْ بَدَنَتِهِ أَنَّهُ لَمْ يُضَيِّعْ لَهُ فَرْضًا كَانَ وَاجِبًا عَلَيْهِ ، فَكَانَ مَعْلُومًا بِذَلِكَ أَنَّهُ غَيْرُ وَاجِبٍ
সূত্র: তাফসীরে তাবারী খ. ১৮ পৃ. ৬০৬

৬. জন্মদিন, মৃত্যুবার্ষিকী ও বিবাহ অনুষ্ঠানে কুরবানীর গোশত খাওয়ানো যাবে কি?
…মো. রফিকুল ইসলাম

عن أنس بن مالك قال قَدِمَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ الْمَدِينَةَ وَلَهُمْ يَوْمَانِ يَلْعَبُونَ فِيهِمَا فَقَالَ مَا هَذَانِ الْيَوْمَانِ قَالُوا كُنَّا نَلْعَبُ فِيهِمَا فِي الْجَاهِلِيَّةِ فَقَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ إِنَّ اللَّهَ قَدْ أَبْدَلَكُمْ بِهِمَا خَيْرًا مِنْهُمَا يَوْمَ الْأَضْحَى وَيَوْمَ الْفِطْرِ
সূত্র: সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং ১১৩৪, নাসাঈ:১৫৫৬ মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ১২০০৬

তবে বৈধ কোনো অনুষ্ঠানে কুরবানীর গোশত খাওয়ানো যাবে। কারণ হাদিসে এসেছে,

عَنْ أَبِي سَعِيدٍ الْخُدْرِيِّ، قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏”‏ يَا أَهْلَ الْمَدِينَةِ لاَ تَأْكُلُوا لُحُومَ الأَضَاحِيِّ فَوْقَ ثَلاَثٍ ‏فَشَكَوْا إِلَى رَسُولِ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم أَنَّ لَهُمْ عِيَالاً وَحَشَمًا وَخَدَمًا فَقَالَ ‏”‏ كُلُوا وَأَطْعِمُوا وَاحْبِسُوا أَوِ ادَّخِرُوا
সূত্র: সহিহ মুসলিম হাদিস: ১৯৭৩

৭. কুরবানীর গোশত বিক্রি করলে ক্রয় করা যাবে কি?
…মো. সোলেমান হক

للمالك أن يتصرف في ملكه تصرفا مطلقا

ولو وهب لرجل شاة فضحى بها الموهوب له أجزأته عن الاضحية لأنه ملكها بالهبة والقبض، فصار كما لو ملكها بالشراء
সূত্র: বাদায়েউস সানায়ে খ. ৪ পৃ. ২১৮

৮. কুরবানীর গোশত গরীবদের না দিয়ে আত্মীয়-স্বজনকে দেওয়া যাবে কি না?
…মো. নাহিদ হাসান

وَالْأَفْضَلُ أَنْ يَتَصَدَّقَ بِالثُّلُثِ وَيَتَّخِذَ الثُّلُثَ ضِيَافَةً لِأَقْرِبَائِهِ وَأَصْدِقَائِهِ وَيَدَّخِرَ الثُّلُثَ
সূত্র: রদ্দুল মুহতার খ. ৯ পৃ. ৪৭৪ ফাতাওয়া আলমগিরি খ. ৫ পৃ. ৩৭০-৩৭১ বাদায়েউস সানায়ে খ. ৪ পৃ. ২২৪ ই’লাউস সুনান খ. ১৭ পৃ. ২৬২

الصَّدَقَةُ عَلَى الْمِسْكِينِ صَدَقَةٌ وَهِيَ عَلَى ذِي الرَّحِمِ ثِنْتَانِ صَدَقَةٌ وَصِلَةٌ
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ৬৫৮

৯. মহিলাদের উপর কুরবানী ওয়াজীব?
…মিসেস সাথী বেগম

فصل لربك وانحر
সুরা কাউসার-২

عَنْ عَائِشَةَ رضى الله عنها أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم دَخَلَ عَلَيْهَا وَحَاضَتْ بِسَرِفَ، قَبْلَ أَنْ تَدْخُلَ مَكَّةَ وَهْىَ تَبْكِي فَقَالَ مَا لَكِ أَنَفِسْتِ قَالَتْ نَعَمْ‏ قَالَ إِنَّ هَذَا أَمْرٌ كَتَبَهُ اللَّهُ عَلَى بَنَاتِ آدَمَ فَاقْضِي مَا يَقْضِي الْحَاجُّ غَيْرَ أَنْ لاَ تَطُوفِي بِالْبَيْتِ
সূত্র: সহিহ বুখারী হাদিস: ৫১৫০

ضَحَّى رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم عَنْ أَزْوَاجِهِ بِالْبَقَرِ‏
সূত্র: সহিহ বুখারী হাদিস: ৫৫৪৮

মহিলারা কুরবানীর পশু যবাহ করতে পারবে?

عَنْ ابْنِ كَعْبِ بْنِ مَالِكٍ عَنْ أَبِيهِ أَنَّ امْرَأَةً ذَبَحَتْ شَاةً بِحَجَرٍ فَسُئِلَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم عَنْ ذ‘لِكَ فَأَمَرَ بِأَكْلِهَا
সূত্র: সহিহ বুখারী হাদিস: ৫৫০৪

১০. যবাহকারীকে পারিশ্রমিক দেওয়া যাবে কি?

রদ্দুল মুহতারে এসেছে,

وَلَا يُعْطَى أَجْرُ الْجَزَّارِ مِنْهَا لِأَنَّهُ كَبَيْعٍ
সূত্র: রদ্দুল মুহতার খ: ৯ পৃ: ৪৭৫

عن عَلِيّ أَنَّ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم أَمَرَهُ أَنْ يَقُومَ عَلَى بُدْنِهِ وَأَنْ يَقْسِمَ بُدْنَهُ كُلَّهَا لُحُومَهَا وَجُلُودَهَا وَجِلاَلَهَا وَلاَ يُعْطِيَ فِي جِزَارَتِهَا شَيْئًا
সূত্রঃ সহিহ বুখারী হাদিস: ১৭১৭ মুসলিম: ১৩১৭

১১. বন্টনের আগে বাসায় নিয়ে রান্না করে খাওয়া যাবে কি?
…শাহানুর বেগম

১২. পায়া,মাথা ইত্যাদী ভাগ করা হয় না, তাহলে কি কুরবানী হবে?
…খাদিজা বেগম

কারো ভাগে যদি পায়া, ক্ষুর, মাথা বা কোন হাড্ডি বেশি যায় তাহলে তার অংশ থেকে গোশত একটু কমিয়ে দিতে হবে। যেন গড়ে সমান হয়। এব কথায় যেভাবে সমতা রক্ষা হয়, সে পথ অবলম্বন করা। আল্লাহ তা’আলা বলেন,

وَلاَ تَأْكُلُواْ أَمْوَالَكُم بَيْنَكُم بِالْبَاطِلِ

অর্থ: তোমরা অন্যায়ভাবে একে অপরের সম্পদ ভোগ করো না।
সুরাঃ বাকারা আয়াত: ১৮৮

১৩. কুরবানীর সাথে আকীকা দেওয়া যাবে কি না?
দিলে কত ভাগ দেওয়া যাবে?
…মো. মোয়াজ্জেম

১. প্রত্যেক অংশ আলাদা।

البقرة عن سبعة والجزور عن سبعة
সূত্র: সুনান আবু দাউদ, হাদীস : ২৮০১

২. আকীকাও কুরবানী।

من أحب منكم أن ينسك عن ولده فليفعل، على الغلام شاتان مكافأتان، وعلى الجارية شاة.

সূ্ত্র: মুসান্নাফে আব্দুর রাযযাক হাদিস: ৭৯৬১ আবু দাউদ হাদিস: ২৮৪২

৩. সাহেবে নেসাব নন এমন ব্যক্তি কুরবানীর পশুতে শরীক থাকলে যেমন হবে, তেমন আকীকাও।

—————————————————–

বাড়িতে অন্তঃসত্ত্বা

عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ مَسْعُودٍ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم الطِّيَرَةُ مِنَ الشِّرْكِ
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৬১৪ আবু দাউদ: ৩৯১০ ইবনে মাজাহ: ৩৫৩৮ আহমাদ: ৪১৯৪ সহিহ ইবনে হিব্বান: ৬১২২ আত তারগীব খ: ৪ পৃ: ১০৫ (হাদিসটি সহিহ)

হারিয়ে বা চুরি হয়ে গেলে

عن تميم بن حويص الأزدي قال ضلت أضحيتي قبل أن أذبحها فسألت ابن عباس فقال لا يضرك
সূত্রঃ আল মুহাল্লা খ: ৭ পৃ: ৩৫৮ ইলাউস সুনান খ: ১৭ পৃ: ২৮০

কুরবানীর পশুর গলায় মালা পরানো যাবে।

قَالَتْ عَائِشَةُ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا أَنَا فَتَلْتُ قَلاَئِدَ هَدْيِ رَسُولِ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ بِيَدَيَّ، ثُمَّ قَلَّدَهَا رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ بِيَدَيْهِ، ثُمَّ بَعَثَ بِهَا مَعَ أَبِي
সূ্ত্র: সহিহ বুখারী হাদীস: ২৩১৭

কুরবানীর পশুর দুধ দহন করে খাওয়া যাবে?

أَمَرَنِي رَسُولُ اللهِ صَلّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلّمَ أَنْ أَقُومَ عَلَى بُدْنِهِ وَأَنْ أَتَصَدّقَ بِلَحْمِهَا وَجُلُودِهَا وَأَجِلّتِهَا وَأَنْ لاَ أُعْطِيَ الْجَزّارَ مِنْهَا قَالَ نَحْنُ نُعْطِيهِ مِنْ عِنْدِنَا
সূত্র: সহীহ মুসলিম হাদীস: ১৩১৭ বুখারী: ১৭১৬

অসুস্থ ও দুর্বল পশুর কুরবানী।

لاَ يُضَحَّى بِالْعَرْجَاءِ بَيِّنٌ ظَلَعُهَا وَلاَ بِالْعَوْرَاءِ بَيِّنٌ عَوَرُهَا وَلاَ بِالْمَرِيضَةِ بَيِّنٌ مَرَضُهَا وَلاَ بِالْعَجْفَاءِ الَّتِي لاَ تُنْقِي

অর্থ: খোড়া জন্তু যার খোড়ামী স্পষ্টভাবে প্রকাশিত; অন্ধ পশু যার অন্ধত্ব সম্পূর্ণভাবে প্রকাশিত; রুগ্ন পশু যার রোগ দৃশ্যমান এবং ক্ষীণকায় পশু যার হাড়ের মজ্জা পর্যন্ত শুকিয়ে গেছে- তা দ্বারা কুরবানী করা যাবে না।
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৪৯৭ ফাতাওয়া আলমগীরী খ: ৫ পৃ: ২৯৭, বাদায়েউস সানায়ে খ: ৪ পৃ: ২১৪

খোড়া পশুর কুরবানী।

যে পশু তিন পায়ে চলে, এক পা মাটিতে রাখতে পারে না বা ভর করতে পারে না অথবা যে পশু জবাইয়ের স্থান পর্যন্ত হেঁটে যেতে পারে না তা দ্বারা কুরবানী করা জায়েয নয়।

قال إذا بلَغَتِ المَنْسَكَ
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৫০৩

অন্ধ পশুর কুরবানী

যে পশুর দুটি চোখই অন্ধ বা এক চোখ পুরো নষ্ট সে পশু কুরবানী করা জায়েয নয়।
সূত্র: ফাতাওয়া কাযীখান খ. ৩ পৃ. ৩৫২ বাদায়েউস সানায়ে খ. ৪ পৃ. ২১৪

প্রমাণ:

لاَ يُضَحَّى بِالْعَوْرَاءِ بَيِّنٌ عَوَرُهَا
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৪৯৭

কান বা লেজ কাটা পশুর কুরবানী করা যাবে?

যে পশুর কোনো কান বা লেজ অর্ধেক বা তারও বেশি কাটা সে পশুর কুরবানী জায়েয নয়। আর যদি অর্ধেকের বেশি ভাল থাকে, তাহলে তার কুরবানী জায়েয। তবে জন্মগতভাবেই যদি কান ছোট হয় তাহলে অসুবিধা নেই।

عَنْ عَلِيٍّ، قَالَ نَهَى رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم أَنْ يُضَحَّى بِأَعْضَبِ الْقَرْنِ وَالأُذُنِ ‏قَالَ قَتَادَةُ فَذَكَرْتُ ذَلِكَ لِسَعِيدِ بْنِ الْمُسَيَّبِ فَقَالَ الْعَضْبُ مَا بَلَغَ النِّصْفَ فَمَا فَوْقَ ذَلِكَ ‏
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৫০৪ সুনানে আবু দাউদ: ২৮০৫ ইবনে মাজাহ: ৩১৮৩

শিং ভাঙ্গা বা ফেটে যাওয়া পশু কুরবানী

যে পশুর অর্ধেক শিং বা কিছু শিং ফেটে বা ভেঙ্গে গেছে বা শিং একেবারে উঠেইনি সে পশু কুরবানী করা জায়েয।

প্রমাণ:

হুজাইয়্যাহ রহ. আলী রা. কে

قُلْتُ فَمَكْسُورَةُ الْقَرْنِ قَالَ لاَ بَأْسَ
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৫০৩ আহমাদ: ১০২১

তবে যে পশুর শিং একেবারে গোড়া থেকে ভেঙ্গে গেছে, যে কারণে মস্তিষ্ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সে পশুর কুরবানী জায়েয নয়।

عَنْ عَلِيٍّ، قَالَ نَهَى رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم أَنْ يُضَحَّى بِأَعْضَبِ الْقَرْنِ وَالأُذُنِ ‏قَالَ قَتَادَةُ فَذَكَرْتُ ذَلِكَ لِسَعِيدِ بْنِ الْمُسَيَّبِ فَقَالَ الْعَضْبُ مَا بَلَغَ النِّصْفَ فَمَا فَوْقَ ذَلِكَ ‏
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৫০৪

অন্ডকোষ নাই এমন পশুর কুরবানী

عَنْ جَابِرِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ قَالَ ذَبَحَ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَوْمَ الذَّبْحِ كَبْشَيْنِ أَقْرَنَيْنِ أَمْلَحَيْنِ مُوجَأَيْنِ
সূত্র: সুনান আবু দাউদ হাদীস: ২৭৯৫

বন্ধ্যা পশুর কুরবানী করা যাবে?

وَمِنَ الإِبْلِ اثْنَيْنِ وَمِنَ الْبَقَرِ اثْنَيْنِ قُلْ آلذَّكَرَيْنِ حَرَّمَ أَمِ الأُنثَيَيْنِ
সুরাঃ আনআম আয়াত: ১৪৪

খাসি করা পশু দিয়ে কুরবানী করা।

عَنْ جَابِرِ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ قَالَ ذَبَحَ النَّبِيُّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَوْمَ الذَّبْحِ كَبْشَيْنِ أَقْرَنَيْنِ أَمْلَحَيْنِ مُوجَأَيْنِ
সূত্র: সুনান আবু দাউদ হাদীস: ২৭৯৫

গাই গরু দিয়ে কোরবানি দেওয়া যাবে কি?

وَلِكُلِّ أُمَّةٍ جَعَلْنَا مَنسَكًا لِيَذْكُرُوا اسْمَ اللَّهِ عَلَى مَا رَزَقَهُم مِّن بَهِيمَةِ الْأَنْعَامِ
সুরাঃ হজ্ব আয়াত: ৩৪

وَمِنَ الإِبْلِ اثْنَيْنِ وَمِنَ الْبَقَرِ اثْنَيْنِ قُلْ آلذَّكَرَيْنِ حَرَّمَ أَمِ الأُنثَيَيْنِ
সুরাঃ আনআম আয়াত: ১৪৪

পাঠা দিয়ে কোরবানি দেওয়া যাবে কি?

ثَمَانِيَةَ أَزْوَاجٍ مِّنَ الضَّأْنِ اثْنَيْنِ وَمِنَ الْمَعْزِ اثْنَيْنِ قُلْ آلذَّكَرَيْنِ حَرَّمَ أَمِ الأُنثَيَيْنِ أَمَّا اشْتَمَلَتْ عَلَيْهِ أَرْحَامُ الأُنثَيَيْنِ نَبِّؤُونِي بِعِلْمٍ إِن كُنتُمْ صَادِقِينَ
সুরাঃ আনআম আয়াত:১৪৩

ইমাম নববী রহ. বলেন,

ان يكون المذبوح من النَّعَمُ و هِيَ الْإِبِلُ وَالْبَقَرُ وَالْغَنَمُ
سواء الذكر او الانثي
সূত্র: রওযাতুত তালিবীন খ: ২ পৃ: ৪৬২

গর্ভবতী পশুর কুরবানী।

হযরত আলী রা. বলেন,
اذْبَحْ وَلَدَهَا مَعَهَا
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৫০৩

কুরবানীর পশু বাচ্চা দিলে ওই বাচ্চা জবাই না করে জীবিত সদকা করে দেওয়া উত্তম। যদি সদকা না করে তবে কুরবানীর পশুর সাথে বাচ্চাকেও জবাই করবে এবং গোশত সদকা করে দিবে।
সূত্র: ফাতাওয়া কাযীখান খ: ৩ পৃ: ৩৪৯, আলমগীরী খ: ৫ পৃ: ৩০১, রদ্দুল মুহতার খ: ৬ পৃ:৩২৩

তবে প্রসবের সময় আসন্ন হলে সে পশু কুরবানী করা মাকরূহ।
সূত্র: ফাতাওয়া কাযীখান খ: ৩ পৃ: ৩৫০

সুদের উপর ঋণ নিয়ে কুরবানী করা যাবে?

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم ‏أَيُّهَا النَّاسُ إِنَّ اللَّهَ طَيِّبٌ لاَ يَقْبَلُ إِلاَّ طَيِّبًا
সূত্র: সহিহ মুসলিম হাদিস: ১০১৫

পশু কেনার পর দোষ দেখা দিলে

সাহেবে নেসাব কোন ব্যক্তি কুরবানীর নিয়তে ভালো পশু কেনার পর যদি তাতে এমন কোনো দোষ দেখা দেয় যে কারণে কুরবানী জায়েয হয় না তাহলে ওই পশুর কুরবানী সহীহ হবে না। এর স্থলে আরেকটি পশু কুরবানী করতে হবে।তবে ক্রেতা গরীব হলে ত্রুটিযুক্ত পশু দ্বারাই কুরবানী করতে পারবে।
সূত্র’ খুলাসাতুল ফাতাওয়া খ. ৪ পৃ. ৩১৯, বাদায়েউস সানায়ে খ. ৪ পৃ. ২১৬, ফাতাওয়া নাওয়াযেল পৃ. ২৩৯, রদ্দুল মুহতার খ. ৬ পৃ. ৩২৫

عن أبي سعيد الخدري قال اشتَرَيتُ أُضحيَّةً، فجاءَ الذِّئبُ فأَكَلَ من ذَنَبِها أو أَكَلَ ذَنَبَها فسَأَلتُ رسولَ اللهِ ﷺ فقال ضَحِّ بها
সূত্র: মুসনাদে আহমাদ হাদিস: ১১৭৪৩ ইবনে মাজা: ৩১৪৬

দাঁত নেই এমন পশুর কুরবানী

যে পশুর একটি দাঁতও নেই বা এত বেশি দাঁত পড়ে গেছে যে, ঘাস বা খাদ্য চিবাতে পারে না এমন পশু দ্বারাও কুরবানী করা জায়েয নয়।

لا يضحي بِالْمَرِيضَةِ بَيِّنٌ مَرَضُهَا
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৪৯৭

জন্মগত দাঁত না থাকলে সমস্যা নেই।

কুরবানীর আগে কিছু না খাওয়া উত্তম।

كَانَ رَسُولُ اللهِ صَلّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلّمَ لَا يَغْدُو يَوْمَ الْفِطْرِ حَتّى يَأْكُلَ وَلَا يَأْكُلُ يَوْمَ الْأَضْحَى حَتّى يَرْجِعَ فَيَأْكُلَ مِنْ أُضْحِيّتِهِ
সূত্র: মুসনাদে আহমাদ হাদীস: ২২৯৮৪ তিরমিযী: ৫৪২ সহীহ ইবনে খুযাইমা: ১৪২৬; সুনানে দারাকুতনী: ১৭১৫

Check Also

ইতিকাফের ফযিলত عن عائشة أن النبي صلى الله عليه وسلم قال من اعتكف إيمانا واحتسابا …

Leave a Reply

Your email address will not be published.