১১. ভাঙা আয়নায় মুখ দেখা।

সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে,” “ভাঙা আয়নায় মুখ দেখলে বাড়ির অমঙ্গল হয়৷ ফলে পরিবারের প্রিয়জন অসুস্থ হতে পারে। আবার কোথাও চালু আছে “হায়াত কমে যায়।” এটা শিরকী বিশ্বাস। কারণ হায়াত কমানোর মালিক একমাত্র আল্লাহ, আর অশুভলক্ষণ বলতে তো ইসলামে কিছু নেই। এসব সুস্পষ্ট শিরক। কারণ হাদিস শরীফে এসেছে,

عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ مَسْعُودٍ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم الطِّيَرَةُ مِنَ الشِّرْكِ

অর্থ: হহযরত আবদুল্লাহ ইবনু মাসউদ রা. হতে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ কুলক্ষণে বিশ্বাস করা শিরকের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত।
সূত্র: জামে তিরমিযি হাদিস: ১৬১৪ আবু দাউদ: ৩৯১০ ইবনে মাজাহ: ৩৫৩৮ আহমাদ: ৪১৯৪ সহিহ ইবনে হিব্বান: ৬১২২ আত তারগীব খ: ৪ পৃ: ১০৫ (হাদিসটি সহিহ)

হায়াতের মালিক একমাত্র আল্লাহ। আল্লাহ তা’য়ালা বলেন,

وَ لِکُلِّ اُمَّة اَجَلٌ ۚ فَاِذَا جَآءَ اَجَلُهُمۡ لَا یَسۡتَاۡخِرُوۡنَ سَاعَة وَّ لَا یَسۡتَقۡدِمُوۡنَ

প্রত্যেক সম্প্রদায়ের একটি মেয়াদ রয়েছে। যখন তাদের মেয়াদ এসে যাবে, তখন তারা না এক মুহুর্ত পিছে যেতে পারবে, আর না এগিয়ে আসতে পারবে।
সুরাঃ আরাফ আয়াত: ৩৪

আসল কারণ হলো, ভাঙা আয়না বাড়িতে থাকলে, যে কোনও সময় দুর্ঘটনা বশত হাত কেটে যাওয়ার আশংকা থাকে৷ সেজন্য অনেকে নিষেধ করতেন। কিন্তু বর্তমানে সেটাকে কুসংস্কারে রুপ দিয়ে শিরক পর্যন্ত নেয়া হয়েছে।

Check Also

স্বামীর নাম মুখে নিলে অমঙ্গল।

  সমাজে একটি কুসংস্কার প্রচলিত রয়েছে যে, ”স্বামীর নাম মুখে নেয়া যাবে না। এতে স্বামীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published.