স্বামীর পায়ের নিচে স্ত্রীর জান্নাত?

 

বর্তমান সমাজে একটি বহুল প্রচলিত কথা রয়েছে যে,

الجنة تحت أقدام الأزواج

অর্থাৎ স্বামীর পায়ের নিচে (স্ত্রীর) জান্নাত। হুবহু এভাবে কোন হাদিস আছে বলে আমাদের জানা নেই। সুতরাং এটিকে হাদীস হিসাবে বলা যাবে না।

তবে কিছু সহিহ হাদীসে আছে যে, স্বামী স্ত্রীর জন্য জান্নাত বা জাহান্নাম। যেমন এক হাদীসে এসেছে-

عن الحصين بن محصن رضي الله عنه أن عمة له أتت النبي صلى الله عليه وسلم في بَعضِ الحاجةِ فقالَ أي هذِهِ ! أَذاتُ بعلٍ قلتُ نعَم قالَ كيفَ أنتِ لهُ قالَت ما آلوهُ إلّا ما عجزتُ عنهُ قالَ فانظُري أينَ أنتِ منهُ فإنَّما هوَ جنَّتُكِ ونارُكِ

অর্থ: হযরত হুসাইন ইবনে মিহসান রা: বর্ণনা করেন যে, একবার তার ফুফু নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর খেদমতে কোন প্রয়োজনে হাজির হলে নবীজি স: তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন, তোমার কি স্বামী আছে? তিনি বললেন, জী, আছে। নবীজী বললেন, তার সাথে তোমার আচরণ কেমন? সে বলল, আমি যথাসাধ্য তার সাথে ভালো আচরণ করার চেষ্টা করি। তখন নবীজী বললেন, হাঁ, তার সাথে তোমার আচরণের বিষয়ে সজাগ থাকো, কারণ সে তোমার জান্নাত বা তোমার জাহান্নাম।
সূ্ত্র: মুসনাদে আহমাদ হাদীস: ১৮৯০৪ সহিহ আত তারগীব: ১৯৩৩ মুআত্তা মালেক: ৯৫২ তবরানী: ৫২৮ মুসতাদরাকে হাকেম: ২৭৬৯ সুনানে কুবরা (বায়হাকী): ১৪৭০৬ (হাদিস: সহিহ)

অপর হাদীসে এসেছে,

عن أبي هريرة قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم إذا صلَّتِ المرأةُ خَمْسَها وصامتْ شهرَها وحصَّنتْ فرْجَها وأطاعت بعلَها دخَلتْ مِن أيِّ أبوابِ الجنَّةِ شاءتْ

অর্থ: হযরত আবু হুরায়রা রা: থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ স: বলেন, নারী যখন পাঁচ ওয়াক্ত নামায ঠিকমত আদায় করবে, রমযানের রোযা রাখবে, আপন লজ্জাস্থানের হেফাযত করবে, স্বামীর আনুগত্য করবে তখন সে জান্নাতের যেই দরজা দিয়ে ইচ্ছা প্রবেশ করতে পারবে।
সূ্ত্র: সহীহ ইবনে হিব্বান হাদীস: ৪১৬৩ আহমাদ: ১৬৬১ তবরারী: ৪৫৯৮

সুতরাং এ হাদিসগুলোর দিকে দৃষ্টিপাত করলে বুঝা যায় যে, স্বামীকে সন্তুষ্ট রাখা স্ত্রীর জন্য জান্নাতের ওসীলা। তবে আল্লাহ নারাজ হন, স্বামীর এমন কোন আদেশ মানা যাবে না। কারণ হাদিসে এসেছে,

عَنْ عَلِيٍّ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قال لَا طَاعَةَ فِي مَعْصِيَةِ اللَّهِ إِنَّمَا الطَّاعَةُ فِي الْمَعْرُوفِ

অর্থ: হযরত আলী রা: সূত্রে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, আল্লাহর অবাধ্যতায় কারোর আনুগত্য নেই। আনুগত্য কেবল সৎ কাজে।
সূ্ত্র: সহিহ বুখারী হাদিস: ৭২৫৭ মুসলিম: ১৮৪০ আহমাদ: ১০৯৫ আবু দাউদ: ২৬২৫ নাসাঈ: ৪২০৫

 

লেখক

মুফতী রিজওয়ান রফিকী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *