এক নজরে হেযবুত তওহীদের ভ্রান্ত ও কুফরী আকীদা।

ইসলাম নিয়ে মন্তব্য

 

ইসলাম হারিয়ে গেছে ১৩০০ বছর আগে।
যেটা চলছে এটা খ্রিষ্টান,বৌদ্ধ,হিন্দু,ইহুদি,জৈন ইত্যাদি বহু দীনের(ধর্মের) মত আরেকটি ধর্ম এবং এটা খৃষ্টান ও অগ্নীপূজকদের বানানো ভুল,বিকৃত এবং বিপরীতমুখী ইসলাম। এটা মৃত ইসলাম যা অশান্তি সৃষ্টিকারী,মরা,পচা, দূর্গন্ধময় এবং নারকীয় একটি সিস্টেম। যেটা তার অনুসারীদেরকে জাহান্নামে নিয়ে যাবে। ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করানো ও আলালাহ’তে বিশ্বাসী করানো ইসলাম ও হেযবুত তওহীদের কাজ নয়।
সূত্র: এসলাম শুধু নাম থাকবে পৃ:৬১/৭৫ আল্লাহর মো’জেজা হেযবুত তওহীদের বিজয় ঘোষণা পৃ:৯/৫৪/৫৬ সওমের উদ্দেশ্য পৃ:১৩ ইসলামের প্রকৃত সালাহ-৭/২০/৬১ এসলামের প্রকৃত রুপরেখা-২২ আসুন সিস্টেমটাকেই পাল্টাই-২০ ইসলাম কেন আবেদন হারাচ্ছে পৃ:৫১ ইসলামের প্রকৃত সালাহ পৃ:২০

মুসলিম নিয়ে মন্তব্য

বর্তমানে কোন মুসলমানের আকীদা ঠিক নেই।ফলে সমস্ত মুসলমান কাফের এবং মুশরিক হয়ে গেছে। মুসলিমরা আবর্জনা এবং গলিত লাশ, শুধু দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। মুসলমিরা কুরাইশী কাফেরদের মত। মুসলিমরা ইহুদীদের চেয়েও মালাউন। মুসলিমদের আমল অন্যধর্মাবলম্বীদের মত নিস্ফল ও অনর্থক। সকল মুসলিম জাহান্নামী। অতএব মুসলিম সমাজ থেকে আমাদের আলাদা হাতে হবে।
সূত্র: এসলামের প্রকৃত রুপরেখা-৪৮/৫৯ এসলাম শুধু নাম থাকবে পৃ:৭৭/৮৩/১০৮ এ জাতির পায়ে লুটিয়ে পড়বে বিশ্ব পৃ:১১ ইসলামের প্রকৃত সালাহ-৫৯/৬০ শ্রেনীহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃ:১৪৮ ইসলাম কেন আবেদন হারাচ্ছে পৃ:৫৪ তাওহীদ জান্নাতের চাবি পৃ:২৪ বিকৃত সুফিবাদ পৃ:৩৬ মহাসত্যের আহ্বান (ছোট) পৃ:৬/১০

কুরআন নিয়ে মন্তব্য

কুরআনের আত্মা হারিয়ে গেছে এবং অর্থ পাল্টে গেছে।
সূত্র: সূত্রাপুরে এমামের ভাষণ পৃষ্ঠা-১৯ ইসলাম কেন আবেদন হারাচ্ছে পৃষ্ঠা-৬

ধর্ম সংক্রান্ত মন্তব্য

পৃথিবীর সকল সমস্যা ও অশান্তির মূল কারণ ধর্ম।
সব ধর্মাবলম্বীরা দাজ্জালের অনুসরণ করে মোশরেক ও জাহান্নামী হয়ে গেছে।
মুসলমানদের অপরাধের কারণেই মানুষ নাস্তিক হচ্ছে। কিন্তু নাস্তিকরাও ধার্মিক ও মুত্তাকি। কোন ধর্মই পৃথিবীতে আর শান্তি দিতে পারবে না। কারণ সকল ধর্ম বিষে পরিনত হয়েছে। ধর্ম থেকেই জঙ্গীবাদ তৈরি হচ্ছে। অতএব ধর্ম থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়াটাই যুক্তিসঙ্গত।
সূত্র: জঙ্গিবাদ সংকট পৃষ্ঠা-৬৬ ধর্মবিশ্বাস পৃষ্ঠা-৫/১৫ আদর্শিক লড়াই পৃষ্ঠা-৫ ধর্ম ব্যবসার ফাঁদে পৃষ্ঠা-১৩৯ সবার উর্ধ্বে মানবতা পৃ:১১ সম্মানিত আলেমদের প্রতি পৃ:২ শিক্ষাব্যবস্থার পৃষ্ঠা-১৭ শ্রেণীহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃষ্ঠা-৯/১১ তাকওয়া ও হেদায়াহ পৃ:৭ শিক্ষাব্যবস্থা পৃষ্ঠা-৬৪

অন্যান্য ধর্ম,ধর্মগ্রন্থ ও অবতার

হিন্দুদের সনাতন ধর্মই মূলত কুরআনে বর্ণিত দ্বীনুল কাইয়্যেমাহ। গিতা,বেদ, ত্রিপিটক ইত্যাদি এগুলো সব আল্লাহর প্রেরিত গ্রন্থ। শ্রীকৃষ্ণ, রামচন্দ্র, যুধিষ্ঠির, মনু, বুদ্ধদেব সবাই আল্লাহর প্রেরিত নবি ছিলেন। মনু মূলত নূহ আঃ এবং যুধিষ্ঠির মূলত ইদ্রীস আঃ। সুতরাং অন্য ধর্ম মেনেও ওলী হওয়া যায়। অতএব কোন অমুসলিমকে অপবিত্র বলা মূর্খতা।
সূত্র: সবার উর্ধ্বে মানবতা-৪/৫ মহাসত্যের আহ্বান পৃষ্ঠা-৮৩/১০৪ গনমাধ্যমের করণীয় পৃষ্ঠা-৫৯ শ্রেণীহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃ:৬৫ শোষণের হাতিয়ার-৬২-৬৩ বিকৃত সুফিবাদ পৃষ্ঠা-২৫

মানবতাই ধর্ম

প্রকৃত ধর্ম “মানবতা”। মানবতার জন্যই আল্লাহ আমাদের সৃষ্টি করেছেন। নামাজ রোযা, হজ্ব, পূজা, প্রার্থনা, তীর্থযাত্রা মানুষের মূল এবাদত নয়, মানবতার পক্ষে কাজ করাই প্রকৃত ইবাদত। মানবতার পক্ষে কাজ না করলে তার কোন ইবাদত কবুল হবে না। সে কাফের এবং জাহান্নামী। এই মানবসেবা অমুসলিম বা বামপন্থীরা করলেও জান্নাত সুনিশ্চিত। তাই কারো নির্দিষ্ট ধর্ম পরিবর্তন করানো এবং আল্লাহ’তে বিশ্বাসী বানানো ইসলাম ও হেযবুত তওহীদের কাজ নয়।
সূত্র: শ্রেণীহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃ:৫২ আসুন সিস্টেমটাকেই পাল্টাই-১৮ আদর্শিক লড়াই পৃষ্ঠা-১৪ জঙ্গিবাদ সংকট পৃষ্ঠা-৫৫/৫৬/৭৬ মহাসত্যের আহ্বান পৃষ্ঠা-৭৫/১০৪ ধর্মবিস্বাস পৃ:১২/৩ গণমাধ্যমের করণীয়-৫৪/৯০

যেকোনো ধর্ম পালন করেই জান্নাত যাওয়া যাবে

পৃথিবীর সকল ধর্মই সত্য ধর্ম এবং আল্লাহর প্রেরিত ধর্ম। কোন ধর্মের মূলভিত্তি পাল্টায়নি। অতএব যেকোনো ধর্ম পালন করেই জান্নাতে যাওয়া যাবে।
সূত্র: মহাসত্যের আহ্বান পৃষ্ঠা-৮৩/১০৫ বর্তমানের বিকৃত সুফিবাদ পৃষ্ঠা-৯ দৈনিক বজ্রশক্তি’ ২/২/২০১৬ ঈ মহাসত্যের আহ্বান পৃষ্ঠা-৫১

পন্নীর উপর মোজেজা সংগঠন

“মোজেজা” যা নবীদের সাথে নির্দিষ্ট সেটা পন্নীর দ্বারাও সংগঠিত কয়েছে এবং পন্নীর মোজেজা নবীদের চেয়ে বেশী। পন্নীর মোজেজা কুরআনের মত সত্য। পন্নীর মোজেজা মুহাম্মাদ স: এর মত।
মোজেজার ভাষণ মূলত আল্লাহরই কথা যা পন্নীর মুখ দিয়ে আল্লাহ নিজে বলেছেন। এটা যারা বিশ্বাস করবে না তারা মুনাফিক, বেঈমান এবং জাহান্নামী।
সূত্র: আল্লাহর মোজেজা হেযবুত তওহীদের বিজয় ঘোষণা পৃষ্ঠা-৭/৩৩/২৪/২৫/৫৭/৯১/৬২/৬৩/৬৫/৬৭/৭৯

হেযবুত তওহীদ নিয়ে দৃষ্টিভঙ্গি

একমাত্র হেযবুত তওহীদই সত্য ও আসল ধর্ম। হেযবুত তওহীদ স্বয়ং আল্লাহর সৃষ্টি। আল্লাহ নিজে বলেছেন, হেযবতু তওহীদ দিয়েই সমগ্র দুনিয়ায় তাঁর দ্বীন প্রতিষ্ঠা করবেন। তিনি পন্নীকে সব ধর্মের মানুষের জন্য এমাম হিসাবে মনোনীত করেছেন। পন্নীর জন্য নবিদের চেয়ে বেশি দোয়া করা দরকার। মানুষের বাঁচার উপায় এবং সকল চাহিদা পুরণ করতে পারবে একমাত্র হেযবুত তওহীদ। হেযবুত তওহীদ মাযহাব ধ্বংস করতে চায়।
হেযবুত তওহীদে থাকলে নিশ্চিত জান্নাত এবং দুই শহীদের মর্যাদা। তাদের নামের শেষে রাদিয়াল্লাহু আনহুম বলতে হবে। তাদের লাশ পচে না গলে না।
সূত্র: ইসলাম কেন আবেদন হারাচ্ছে পৃ:২২
মহাসত্যের আহ্বান পৃ:১১/১২/২৪ এ জাতির পায়ে লুটিয়ে পড়বে বিশ্ব পৃষ্ঠা-৩৩/৩৯ আদর্শিক লড়াই পৃ:১৩/১৫ আসুন সিস্টেমটাকে পাল্টাই পৃষ্ঠা-১৮ মহাসত্যের আহ্বান (ছোট) পৃ:১৪ আল্লাহর মো’জেজা হেযবুত তওহীদের বিজয় ঘোষণা-৫৪/৬৩/৬৪/৮৩ গঠনতন্ত্র পৃষ্ঠা-১৫ তওহীদ জান্নাতের চাবি পৃষ্ঠা-৩১

আম্বিয়ায়ে কেরাম নিয়ে মন্তব্য

সকল নবীরা আল্লাহর দেয়া দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছেন। কিন্তু পন্নীকে দিয়ে করাবেন বলে আল্লাহ ওয়াদা করেছেন।
সূত্র: আল্লাহর মো’জেজা হেযবুত তওহীদের বিজয় ঘোষণা-৬৮

ঈসা আঃ নিয়ে মন্তব্য

ঈসা আঃ কোন নতুন ধর্ম নিয়ে আসেননি,তিনি মুসার আঃ আনীত ধর্ম প্রচার করতে এসেছিলেন। খৃষ্ট ধর্মের আবিস্কারক হলেনপল নামক এক ব্যক্তি। তাঁর উম্মতের ভুলের জন্য ঈসা আ: নিজেও কিছুটা অপরাধী।
সূত্র: শ্রেণীহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃ:১৫/১৭ আকিদা পৃষ্ঠা-১৪ দাজ্জাল? ইহুদি-খ্রিষ্টান সভ্যতা পৃ: ৫৫

মুহাম্মাদ স: এর দায়িত্ব ও রহমাতুল্লিল আলামিন সংক্রান্ত অভিযোগ।

বিশ্বনবী সঃ আল্লাহর দেয়া দায়িত্ব পূর্ণ করতে পারেননি। তিনি রহমাতুল্লিল আলামিনও নন।
সূত্র: এসলাম শুধু নাম থাকবে পৃষ্ঠা-১০৪-১০৫ আকিদা পৃ:১৯ শ্রেণীহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃষ্ঠা-১১৫/১৪৮

সাহাবায়ে কেরামের রা: সমালোচনা

সাহাবীদের আকীদায় বিকৃতি ঢুকে গিয়েছিল। তাঁরা দু:খজনক বিভাজন সৃষ্টি করেছিলেন যা উচিৎ হয়নি। তারা ভুলে গিয়েছিলেন তাদেরকে কি উদ্দেশ্যে নবিজি স: তৈরি করেছিলেন। নবিজির বিদায়ের পরপরই তারা জাহেলি কালচার চালু করেছিলেন। ফলে তারা হলেন পথভ্রষ্ট, মোমেন থাকতে পারলেন না। পৃথিবীর সকল ফিৎনার জন্য সাহাবারাই দায়ী। ওহুদ যুদ্ধে সাহাবারা নবিজির অবাধ্যতা করেছিলেন। মেরাজের ঘটনায় শুধু আবু বকর রা: ছাড়া প্রায় সকল সাহাবীর ঈমান নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। সাহাবাদের চরিত্র ছিল যোদ্ধার চরিত্র ও বিস্ফোরনমুখী। একবার নবিজির ধরে সাহাবারা পাথর মেরেছিলেন। মুয়াবিয়া রা: ছিলেন একজন খুনি।
সূত্র: এসলাম শুধু নাম থাকবে পৃষ্ঠা-১০০ এ জাতির পায়ে লুটিয়ে পড়বে বিশ্ব পৃ:৩৮/৬৬
ইসলামের প্রকৃত রূপরেখা পৃষ্ঠা-৭-৮ ধর্মব্যবসার ফাঁদে পৃ:১২০ আকিদা পৃ:১৯ বিকৃত সুফিবাদ পৃ:২০/৩৩ আল্লাহর মো’জেজা হেযবুত তওহীদের বিজয় ঘোষণা-৩৫/৩৬ সওমের উদ্দেশ্য পৃ:১৬ শোষণের হাতিয়ার পৃ:৮৮ শিক্ষাব্যবস্থা পৃ:৫-৬

কবীরা গুনাহর হিসাব দেয়া লাগবে না।

তাওহীদে বিশ্বাস থাকলে হত্যা,চুরি,ব্যভিচারসহ পৃথিবীভর্তি কবীরা গুনাহ করলেও আল্লাহ তাকে জাহান্নামে দেবেন না।
সূত্র: প্রিয় দেশবাসী পৃষ্ঠা-৬৫ আকীদা-৭ তওহীদ জান্নাতের চাবি-১৩/১৫

জন্মননিয়ন্ত্রণ নিয়ে দৃষ্টিভঙ্গি

জনসংখ্যা বৃদ্ধির মানুষের আত্মা নষ্ট হয়ে গেছে, ফলে চুরি,খুনের মত কাজে লিপ্ত হয়ে সব ধ্বংশ হয়ে যাচ্ছে।অতএব জন্মনিয়ন্ত্রণ করা আবশ্যক।
সূত্র: গণমাধ্যমের করণীয় পৃ:৩৭

সহশিক্ষা ও ইসলাম।

সহশিক্ষা তথা নারী পুরুষ এক সাথে শিক্ষা অর্জন করা ইসলামের শিক্ষা।
সূত্র: আসুন সিস্টেমটাকে পাল্টাই পৃষ্ঠা-১৩
শিক্ষাব্যবস্থা পৃষ্ঠা-৬ চলমান সংকট নিরসনে হেযবুত তওহীদের প্রস্তাবনা পৃষ্ঠা-৮

দ্বীনের বিনিময় নেয়া।

দ্বীনের কাজে বিনিময় নেয়া হারাম। যারা জায়েয বলে ফাতাওয়া দিয়েছেন তারা মোমেন না।বিনিময় নিলে দ্বীন বিকৃত হয়ে যায়। তাদের পেছনে নামাজ হয় না।তাদের ওয়াজে মানুষের কোন পরিবর্তন আসে না। তাদের দোয়া কবুল হয় না। তারা আল্লাহর কাছে কোন প্রতিদান পাবে না। যারা নেবে তারা পথভ্রষ্ট ও জাহান্নামী।
সূত্র: এসলাম শুধু নাম থাকবে পৃ:৪২/৭০ হলি আর্টিজেনের পর-৮ শ্রেণীহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃ:১৭৬ আক্রান্ত দেশ আক্রান্ত ইসলাম পৃ:৮ ধর্মব্যবসার ফাঁদে পৃ:৬৫/৭০/৮১

আল্লাহর সিফাত বা গুনাবলী ও মানুষ

মানুষের মধ্যে আল্লাহর রুহ, স্বাধীন ইচ্ছাশক্তি এবং সকল গুনাবলী রয়েছে।
সূত্র: আকিদা পৃ:৫ প্রিয় দেশবাসী পৃষ্ঠা-৬৭ গঠনতন্ত্র পৃ:৯

দাজ্জাল নিয়ে ব্যাখ্যা

দাজ্জাল মূলত কোন মানুষ আকৃতির কিছু না।বরং রুপক অর্থে বর্তমানের ইহুদী-খৃষ্টান সভ্যতাই হচ্ছে দাজ্জাল।
সূত্র: দাজ্জাল? ইহুদী খৃষ্টান সভ্যতা।

পোষাক নিয়ে মন্তব্য

গণতন্ত্রের মত ইসলামের কোন নির্দিষ্ট পোশাক থাকতে পারে না। আরবের কাফেরদের পোষাক আর নবিজি সঃ ও সাহাবাদের পোষাক একই রকম ছিল। নবিজি ভিন্ন কোন পোশাকের আদেশ দেননি।
সূত্র: শ্রেণীহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃ:৪৮ এসলাম শুধু নাম থাকবে পৃ:১৩৪ ধর্মব্যবসার ফাঁদে পৃ:১০৯

নারী সংক্রান্ত দৃষ্টিভঙ্গি

নারীদের পর্দার নামে বোরখা পরিয়ে ঘরে বাক্সবন্দি করা হয়েছে। নারী নেতৃত্ব হারাম নয়। সামাজিক পরামর্শ বৈঠকে, ঈদগাহে মসজিদে নারীদের আনতে হবে। সর্বস্থলে পুরুষের সাথে সমানতালে নারীদের আসতে হবে।
সূত্র: ইসলামের প্রকৃত রূপরেখা পৃষ্ঠা-১৮ গণমাধ্যমের করণীয় পৃ: ৬২/৬৩ /৬৬ধর্মব্যবসার ফাঁদে পৃ:১১০

দাঁড়ি নিয়ে মন্তব্য

দাড়ির সাথে ইসলামের কোন সম্পর্কই নেই। এটা মূলত মক্কার কাফের পৌত্তলিকদের প্রথা যা অমুসলিম ও নাস্তিকরাও রাখে। নবিজি স: নিজেও দাড়ি ছাটতেন। মূলত দাড়ির গুরুত্ব এসেছে জাল হাদিসের মাধ্যমে। অতএব এ সময় মানুষকে বলতে হবে “দাড়ির কথা বাদ দিন।”
সূত্র: এসলাম শুধু নাম থাকবে পৃ:১৩১/১৩৬/১৩৭ ধর্মব্যবসার ফাঁদে পৃ:১৩১ প্রিয় দেশবাসী পৃ:১১৩

সুন্নাতের ভুল ব্যাখ্যা

সুন্নাত মানে জিহাদ। নবিজির স: ব্যক্তিগত খাওয়া,শোয়া,ওঠা,বসা অভ্যাস, পছন্দ-অপছন্দ পোশাক,টুপি,পাগড়ী, ইত্যাদী সুন্নাত নয়। এ গুলোর সাথে এসলামের কোন সম্পর্কই নেই।
সূত্র: আকীদা পৃ:১৬/১৭ এসলামের প্রকৃত রুপরেখা-৩৮

প্রচলিত সংস্কৃতি ও হেযবুত তওহীদ

কোন বাদ্যযন্ত্রসহ গান হারাম নয়। নবিজি স: নিজেও গান-বাজনা শুনতেন। এমনকি নাটক,সিনেমা,অভিনয়, নৃত্য, নাচ, চিত্রাঙ্কন, ভাস্কর্য নির্মাণ হালাল। নবান্ন উৎসব,পহেলা বৈশাখসহ সকল উৎসব আল্লাহর হুকুম অনুযায়ী হয়।
সূত্র: গনমাধ্যমের করণীয় পৃষ্ঠা-৫৯/৬০ গঠনতন্ত্র পৃ:৩৩-৩৪ মহাসত্যের আহ্বান পৃ:৯৭ আসুন সিস্টেমটাকেই পাল্টাই-১২ মহাসত্যের আহ্বান পৃ:৯৪/৯৬

জিহাদ ও যুদ্ধের অপব্যাখ্যা

জিহাদ হলো আসল ইবাদত। বাকি নামাজ, রোজা,হজ্ব,যাকাত এগুলো ইবাদত নয়, জিহাদের ট্রেনিং। ফকীহরা জিহাদের অংশ অবহেলা করে বাদ দিয়েছেন। জিহাদ না করে যতই ইবাদত করুক সব অনর্থক। জিহাদ ছেড়ে দিলে সে কাফের, মুশরিক। যোদ্ধা না হলে ইসলামের প্রাথমিক সদস্যই হওয়া যায় না। অস্ত্রের সাথে সম্পর্ক না থাকলে সে জান্নাতে যেতে পারবে না। জিহাদ আত্মরক্ষামূলক নয় আক্রমনাত্মক।মুজাহিদদের মর্যাদা নবিদের চেয়ে বেশি।
সূত্র: ইসলামের প্রকৃত সালাহ-১৬/১৮/২২/৪৫/৪৬/৪৭ এসলামের প্রকৃত রুপরেখা-১০/৪৯/৪০ বর্তমানের বিকৃত সুফিবাদ পৃ:৫৪

নামাজ

জেহাদ ছাড়া নামাজের কোন দাম নেই।নামাজ ও নামাজের উদ্দেশ্য বিকৃত হয়ে গেছে।নামাজ কোন ইবাদত নয়,জিহাদের ট্রেনিং। বর্তমানের নামাজ মরা নামাজ।নামাজ জান্নাতের চাবি নয়
সূত্র: ইসলামের প্রকৃত সালাহ-২২/৩০/৩২/৫৪/৫৫/৫৭/৬৬

রোজা

রোজা নষ্ট হয়ে গেছে বহু আগে।’
চরিত্র ঠিক না হলে রোজা রেখে লাভ নেই। রোজা না রাখলে শাস্তি হবে এমন কথা কোরআনে নেই।
সূত্র: সওমের উদ্দেশ্য-১০/১১/১২

হজ্ব

হজ্ব কোন ইবাদত নয়, মুসলিমদের বাৎসরিক সম্মেলন।
সূত্র: আসুন সিস্টেমটাকেই পাল্টাই-১৪

আলেম ও ফকীহদের নিয়ে সমালোচনা

আলেমরা সবচে হাসির পাত্র, ঘৃণিত, নিকৃষ্ট ও নেতৃত্বের অযোগ্য। আলেমদের নামাজ হয় না। আলেম,ফকীহ ও সুফিরা ইসলামকে কঠিন ও বিকৃত করে ধ্বংস করেছে এবং কুফরকে ইবাদত মনে করে কাজ করেছে। তারা সত্যের বিরোধিতা করেন। আলেমরা ইহুদী পুরোহীত ও আবু জেহেলেরমত। তাদের অনুসারীরা জাহান্নামী। তাদের হাতে ধর্মের নিয়ন্ত্রণ রাখা যাবে না। যারা দীনের বিনিময় নেন তারা আলেম নন। এরা খৃষ্টানদের এজেন্ট।এদের কারণে নবির নাম কালিমালিপ্ত হয়েছে। আলেমদের ফাতাওয়ার কারণে জাতি মুর্খ হয়ে জাহিলিয়াতকেও ছাড়িয়ে গেছে। আজ ফাতাওয়া দেয়ার অধিকার তারা হারিয়েছেন। তারা অপদার্থ ওয়ারীশ। আলেমরা দাজ্জালকে চিনতে ব্যর্থ হয়েছেন। মাযহাব অনৈসলামিক কাজ এবং মাযহাব উম্মাহকে ৭২ ফিরকায় তৈরি করে বিভক্ত করেছে। ফকীহদের কারণে মুসলিমরা অপমানিত।
সূত্র: আসুন সিস্টেমটাকেই পাল্টাই-৯ ইসলামের প্রকৃত সালাহ-৩৫ এসলাম শুধু নাম থাকবে পৃ:২৩/২৭/২৮/৩৫/৩৬/৪৯/৯৩/৯৪/৯৭/১০১/১২৫/১৩২ গণমাধ্যমের করণীয় পৃ:৯২ এ জাতির পায়ে লুটিয়ে পড়বে বিশ্ব পৃ:৩৭ আদর্শিক লড়াই পৃ:৭ মহাসত্যের আহ্বান পৃ:৩৪ আক্রান্ত দেশ ও ইসলাম পৃ:১৮ জঙ্গীবাদ সঙ্কট পৃ:৩৯/৬৬ ধর্মব্যবসার ফাঁদে পৃ:১৮/৯৯/১১৩ তওহীদ জান্নাতের চাবি-২৪ এসলামের প্রকৃত রুপরেখা-৩১ হলি আর্টিজেনর পর-৯ ধর্মবিশ্বাস পৃষ্ঠা-১৯ সবার ঊর্ধ্বে মানবতা পৃষ্ঠা-৫ শিক্ষাব্যবস্থা পৃষ্ঠা-১৯/৫৬

তাযকিয়াতুন নফস

আধ্যাতিক ঘষামাজা ইসলাম ও নবির স: শিক্ষা নয়,বরং খ্রিষ্টানদের শেখানো। এগুলো বেদাত। সুফিরা ধর্মকে বিকৃত করেছে।
সূত্র: এসলাম শুধু নাম থাকবে পৃ:১১২
হলি আর্টিজেনের পর-১৩ বর্তমানের বিকৃত সুফিবাদ পৃষ্ঠা-১৭ প্রিয় দেশবাসী পৃ:১১৪ শ্রেণীহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃষ্ঠা-৫৭

ইবলিসের চ্যালেঞ্জ ও আল্লাহর পরাজয়

ইবলিস আল্লাহকে চ্যালেঞ্জ দিয়েছিল। আল্লাহও ইবলিসের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু ইবলিসের কাছে আল্লাহ হেরে গেছেন।
সূত্র: তওহীদ জান্নাতের চাবি-৪ প্রিয় দেশবাসী পৃষ্ঠা-৫৯ দাজ্জাল পৃ:১৬ এসলামের প্রকৃত রুপরেখা-৩৭/৩৪ ধর্মব্যবসার ফাঁদে পৃ:১৩১

পন্নী সাহেব ৭১ এর রাজাকার

বায়াজীদ খান পন্নী ছিলেন বড় মাপের রাজাকার। টাঙ্গাঈলের ৪ ভাগ এক ভাগ রাজাকার বানিয়েছিলেন তিনি ও তার বাবা। নারী ধর্ষণ,হত্যা,লুন্ঠন ও ঘরবাড়ি জালানো ছিল তার কর্ম। স্বাধীনতার পর তাকে দড়ি দিয়ে বেধে জরিমানা,বেত্রাঘাত ও ১২ মাইল পায়ে হাটার মাধ্যমে বিচার করেছিলেন মুক্তিযোদ্ধারা।
সূত্র: স্বাধীনতা ‘৭১ পৃ: ৬৪৮/৭০৬-৭১০
শ্রেণিহীন সমাজ সাম্যবাদ প্রকৃত ইসলাম পৃ:১৮৪/১৮৬

Check Also

দিবস পালন

  ইসলামে দুই ঈদ ব্যাতিত কোনো দিবস পালন করা বৈধ নয়। কিন্তু এ মহাসত্যকে অস্বীকার …

One comment

  1. মাওলানা মাহমূদুল হাসান আল-মামুন

    আল্লাহ হেযবুতের ফেতনা থেকে জাতিকে হেফাযত করুক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.