ইতিকাফ অবস্থায় লেনদেনের কথা বলা যাবে।

ইতিকাফ অবস্থায় লেনদেনের কথা বলা

ولا بأس بان يشترى المعتكف ويبيع في المسجد ويتحدث بما بدا له بعد أن لا يكون مأثما
সূত্র: আল মাবসুত (সারাখসী) খ. ৩ পৃ. ১২১

والبيع والشراء من جنس الكلام المباح فلا بأس به للمعتكف
সূত্র: আল মাবসুত খ. ৩ পৃ. ১২২

কারণ হাদিস শরীফে এসেছে,

عَنْ صَفِيَّةَ بِنْتِ حُيَىٍّ، قَالَتْ كَانَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم مُعْتَكِفًا فَأَتَيْتُهُ أَزُورُهُ لَيْلاً فَحَدَّثْتُهُ ثُمَّ قُمْتُ لأَنْقَلِبَ

অর্থ: আম্মাজান সাফিয়্যাহ্ বিনতু হুয়াই (রাযিঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইতিকাফরত ছিলেন। আমি রাত্রিতে তার সাথে দেখা করতে এলাম। (কিছু সময়) তার সাথে কথা বললাম, এরপর ফিরে যাওয়ার জন্যে উঠলাম। তিনিও আমাকে বিদায় দেয়ার জন্যে আমার সঙ্গে উঠলেন।
সূত্র: সহিহ মুসলিম হাদিস: ২১৭৫

তবে পন্য মসজিদে আনা যাবে না।

وهذا إذا لم يحضر السلعة إلى المسجد فاما احضار السلعة إلى المسجد للبيع والشراء في المسجد مكروه فان النبي صلى الله عليه وسلم قال جنبوا مساجدكم إلى قوله وبيعكم وشراءكم
সূত্র: আল মাবসুত (সারাখসী) খ. ৩ পৃ. ১২২

কারণ হাদিস শরীফে আসছে, হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল রা. থেকে বর্ণিত নবীজি সা. বলেন,
جنِّبُوا مساجدَكم صبيانَكم وخصوماتِكم وحدودَكم وشراءَكم وبيعَكم وجَمِّرُوها يومَ جُمَعِكم واجعلوا على أبوابِها مطاهرَكم
সূত্র: মুসান্নাফে আব্দুরর রাজ্জাক হাদিস: ১৭২৬ তবরানী: ৩৬৯

Check Also

ইমাম সাহেবের হুজরায় যেতে পারবে কি না?

إن خرج من غير عذر ساعة فسد اعتكافه অর্থাৎ কোনো প্রয়োজন ছাড়া যদি ইতিকাফকারী ব্যক্তি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.