Home > হিজবুত তাওহীদ > আল্লাহর নৈকিট্য অর্জন করা আবশ্যক নয়!

আল্লাহর নৈকিট্য অর্জন করা আবশ্যক নয়!

প্রিয় পাঠক, মহান আল্লাহ আমাদেরকে অহেতুক সৃষ্টি করেননি। আল্লাহ চান যেন সকল বান্দা তাঁকে ভালোবাসেন, তাঁকে মহব্বত করেন। যারা রব থেকে দূরে সরে যায়, তাদের উদ্দেশ্যে আল্লাহ তা’আলা বলেন,

يَا أَيُّهَا الْإِنسَانُ مَا غَرَّكَ بِرَبِّكَ الْكَرِيمِ

অর্থ: হে মানুষ, কিসে তোমাকে তোমার মহামহিম পালনকর্তা সম্পর্কে বিভ্রান্ত করলো?
সূরা ইনফিতার, আয়াত: ৬

সুতরাং বুঝা গেলো, আল্লাহর চাওয়া হলো, তাঁর বান্দারা  দুনিয়াপ্রীতি থেকে সরে তাঁর ভালোবাসা কামনা করুক। অতএব একথা চিরসত্য যে, সকল বান্দার জন্য আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা মূল টার্গেট। কিন্তু এ গুরুত্বপূর্ণ এবং মূল বিষয়টি আবশ্যক নয় বলে দাবি করছে হেযবুত তওহীদ।

হেযবুত তওহীদের দাবি:

প্রশ্ন আসে, তবে কি আধ্যাত্মিক উন্নতি লাভের প্রয়োজনীয়তা এ দীনে নেই? আছে, আগেই বলেছি, এ দীন ভারসাম্য যুক্ত। কাজেই দুটোই আছে, কিন্তু প্রথম হলো পৃথিবীতে আল্লাহর আইন প্রতিষ্ঠিত করে শান্তি (ইসলাম) প্রতিষ্ঠা করে তারপর আল্লাহর নৈকট্য লাভের চেষ্টা। প্রথমটা ফরজ, দ্বিতীয় টা নফল। ফরদ নামাজ বাদ দিয়ে শুধু সুন্নত বা নফল নামাজ পড়লে শরীয়া মোতাবেকই তা যেমন নাজায়েয, ঠিক তেমনি বিশ্ব নবীর উপর আল্লাহ দেয়া দায়িত্বকে পূর্ণ করার ফরদ কাজ বাদ দিয়ে, আল্লাহর নৈকট্য লাভের পক্রিয়া অর্থাৎ নফল কাজ নিয়ে ব্যস্ত হলে তা ঐ শরীয়াহ মোতাবেকই জায়েজ হবে না।
সূত্র: এ ইসলাম ইসলামই নয়, পৃ. ১১০

প্রিয় পাঠক, একটু ভেবে দেখুন তো কথাটি কতবড় ভয়ঙ্কর কথা। সুতরাং হেযবুত তওহীদের উক্ত বক্তব্য থেকে তারা দুটি বিষয় স্পষ্ট করতে চেয়েছে।
১. ইসলাম প্রতিষ্ঠা করা ফরজ আর আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা নফল, তথা আবশ্যক নয়।
২. ইসলাম প্রতিষ্ঠা হওয়ার আগে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করার প্রচেষ্টা নাজায়েয।

ইসলাম কি বলে?

এক. আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা কি আবশ্যক নয়?

মহান আল্লাহ তাঁর নৈকট্য অর্জন করা সর্বাবস্থায় ফরজ। এ সম্পর্কে পবিত্র  কুরআন এবং নবীজির সা. অসংখ্য হাদিস রয়েছে। চলুন কয়েকটি প্রমাণ দেখা যাক।

দলীল: ১

মহার রব বলেন,

وَمِنَ النَّاسِ مَن يَتَّخِذُ مِن دُونِ اللّهِ أَندَاداً يُحِبُّونَهُمْ كَحُبِّ اللّهِ وَالَّذِينَ آمَنُواْ أَشَدُّ حُبًّا لِّلّهِ وَلَوْ يَرَى الَّذِينَ ظَلَمُواْ إِذْ يَرَوْنَ الْعَذَابَ أَنَّ الْقُوَّةَ لِلّهِ جَمِيعاً وَأَنَّ اللّهَ شَدِيدُ الْعَذَابِ

অর্থ: আর কোন লোক এমনও রয়েছে যারা অন্যান্যকে আল্লাহর সমকক্ষ সাব্যস্ত করে এবং তাদের প্রতি তেমনি ভালবাসা পোষণ করে, যেমন আল্লাহর প্রতি ভালবাসা হয়ে থাকে। কিন্তু যারা আল্লাহর প্রতি ঈমানদার তাদের ভালবাসা ওদের তুলনায় বহুগুণ বেশী। আর কতইনা উত্তম হ’ত যদি এ জালেমরা পার্থিব কোন কোন আযাব প্রত্যক্ষ করেই উপলব্ধি করে নিত যে, যাবতীয় ক্ষমতা শুধুমাত্র আল্লাহরই জন্য এবং আল্লাহর আযাবই সবচেয়ে কঠিনতর।
সূরা বাকারা, আয়াত: ১৬৫

প্রিয় দ্বীনি ভাই, উক্ত আয়াতে মহান আল্লাহ ঈমানদারদের পরিচয় বর্ণনা করেছেন। অর্থাৎ ঈমানদার হলো তারা,

وَالَّذِينَ آمَنُواْ أَشَدُّ حُبًّا لِّلّهِ

অর্থাৎ কিন্তু যারা আল্লাহর প্রতি ঈমানদার তাদের ভালবাসা ওদের তুলনায় বহুগুণ বেশী। সুতরাং বুঝা গেলো ঈমানদার হলো, যাঁদের অন্তরে সবচে বেশি আল্লাহর ভালোবাসা থাকবে। সুতরাং যারা আল্লাহর নৈকট্যকে আবশ্যকীয় মনে করে না, তারা কখনও ঈমানদার হতে পারে না।

দলীল: ২

মহান আল্লাহ বলেন,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُواْ اتَّقُواْ اللّهَ وَابْتَغُواْ إِلَيهِ الْوَسِيلَةَ وَجَاهِدُواْ فِي سَبِيلِهِ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُونَ

অর্থ: হে মুমিনগণ! আল্লাহকে ভয় কর, তাঁর (ওসীলা) নৈকট্য অন্বেষন কর এবং তাঁর পথে জেহাদ করো, যাতে তোমরা সফলকাম হও।
সূরা মায়িদা, আয়াত: ৩৫

উক্ত আয়াতের মধ্যে থাকা ওসীলা শব্দের অর্থ কি?

রঈসুল মুফাসসিরিন, বিশিষ্ট সাহাবী হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. এ ব্যাপারে মতামত পেশ করেছেন,

عَنْ عَطَاءٍ عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ أَيِ الْقُرْبَةَ

অর্থাৎ বিশিষ্ট তাবেয়ী আতা রহি. ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণনা করেন, (ওসীলা) অর্থ হলো, নৈকট্য অর্জণ করা।
সূত্র: তাফসীরে ইবনে কাসীর, খ. ৩ পৃ. ৭৫ তাফসীরে ইবনে তাইমিয়া, খ. ৪ পৃ. ৯৪

ইবনে কাসীর রহি. আরও বলেন,

وَكَذَا قَالَ مُجَاهِدٌ وَعَطَاءٌ وَأَبُو وَائِلٍ وَالْحَسَنُ وَقَتَادَةُ وَعَبْدُ اللَّهِ بْنُ كَثِيرٍ وَالسُّدِّيُّ وَابْنُ زَيْدٍ

অর্থাৎ এমনই মত পোষণ করেছেন (অসংখ্য তাবেয়ী, যেমন) হযরত মুজাহিদ, আতা, আবু ওয়ায়িল, হাসান বসরী, কাতাদাহ, আব্দুল্লাহ ইবনে কাসীর, সুদ্দী এবং ইবনে যায়েদ রহি. প্রমুখ।
সূত্র: তাফসীরে ইবনে কাসীর, খ. ৩ পৃ. ৭৫

তাবেয়ী কাতাদাহ রহি. এর অভিমত:

عن قتادة قوله فيها أى تقربوا إليه بطاعته والعمل بما يرضيه

অর্থাৎ তাবেয়ী হযরত কাতাদাহ রহি. বলেন, আয়াতের অর্থ হলো- ‘তোমরা তাঁর আনুগত্য করার মাধ্যমে এবং যে সকল কাজ তিনি খুশী হন তার মাধ্যমে তাঁর (আল্লাহর) নিকটবর্তী হও।’
সূত্র: তাফসীরে ইবনে কাসীর, খ. ৩ পৃ. ১০৩

এ কথাগুলো উল্লেখ করার পর ইমাম ইবন কাসীর রহি. বলেন,

وهذا الذى قاله هؤلاء الأئمة لا خلاف بين المفسرين فيه

অর্থাৎ এ সকল মহান ইমামগণ আয়াতের তাফসীরে এ কথাগুলোই বলেছেন। যে ব্যাপারে মুফাসসিরদের মাঝে কোন মতভেদ নেই।
সূত্র: তাফসীরে ইবনে কাসীর, খ. ৩ পৃ. ১০৩

সুতরাং প্রমাণ হলো, ওসীলা শব্দের অর্থ হলো, নৈকট্য অর্জন করা। আর এ আয়াত দিয়ে সে প্রমাণ হলো যে, আল্লাহ তা’আলা তাঁর নৈকট্য অর্জন করার নির্দেশ দিয়েছেন।

তবে হেযবুত তওহীদ হয়তো দাবি করতে পারে যে, এখানে ‘ওসীলা’ শব্দের অর্থ ‘নৈকট্য অর্জন করা’ এটা আমাদের মনগড়া ব্যাখ্যা। তাহলে নিন্মের আয়াতটি দেখুন।

দলীল: ৩

মহান আল্লাহ বলেন,

وَاسْجُدْ وَاقْتَرِبْ

অর্থ: আপনি সেজদা করুন ও আমার নৈকট্য অর্জন করুন।
সূরা আলাক, আয়াত: ১৯

উক্ত আয়াতের তাফসীর কাতে গিয়ে ইমাম কুরতুবী রহি.বলেন,

واسجد أي صل لله واقترب أَيْ تَقَرَّبْ إِلَى اللَّهِ جَلَّ ثَنَاؤُهُ بِالطَّاعَةِ وَالْعِبَادَةِ

অর্থাৎ ‘সেজদা করুন’ অর্থ হলো, ‘আল্লাহর জন্য নামাজ পড়ুন’ এবং ‘নৈকট্য অর্জন করুন’ অর্থ হলো, অনুসরণ ও ইবাদতের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করুন।
সূত্র: তাফসীরে কুরতুবী, খ. ২০ পৃ. ১১৪

প্রিয় পাঠক, এ আয়াতে সুস্পষ্টভাবে নৈকট্য অর্জনের সরাসরি শব্দটিই আল্লাহ তা’আলা ব্যবহার করেছেন। সুতরাং এখন তো আর অস্বীকার করার কোনো সুযোগ নেই। সুতরাং প্রমাণ হলো, আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা এটা মহান রবের পক্ষ থেকে একটি সুস্পষ্ট বিধান।তবে প্রশ্ন হলো, এ নৈকট্য অর্জন করা নফল না ফরজ? এটা বুঝার জন্য খেয়াল করুন।

উক্ত আয়াতে মহান আল্লাহ তা’আলা তাঁর নৈকট্য অর্জনের কথা বলতে গিয়ে صيغة الامر তথা আদেশসূচক বাক্য ব্যবহার করেছেন। আর পবিত্র কুরআনের সকল আদেশসূচক শব্দ ফরজ বা ওয়াজীবের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। অবশ্য যেসব বিষয়ে ভিন্ন কোনো বিধান বর্ণিত হয়, সেগুলোর কথা ভিন্ন। কিন্তু এ আয়াতে বর্ণিত বিধানের বিপরীত ভিন্ন কোনো বিধান অন্য কোথাও নেই। সুতরাং বুঝা গেলো, আল্লাহর নৈকট্য অর্জণ করা নফল নয়, বরং ফরজ।

দুই.
ইসলাম প্রতিষ্ঠা হওয়ার আগে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করার প্রচেষ্টা নাজায়েয।

তাহলে কালেমা পড়াও নাজায়েজ!

এক.
তাদের যে দাবি, অর্থাৎ ‘আল্লাহর আইন প্রতিষ্ঠান আগে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের সকল প্রক্রিয়া তথা আমল নাজায়েয’ অথচ উক্ত আয়াত মক্কায় অবতীর্ণ। তখনও ইসলামী শরীয়াহ প্রতিষ্ঠিত হয়নি, এর আগেই এ আয়াত নাজিল হয়েছিলো। সুতরাং আল্লাহ তা’আলা নিজেই তাঁর আইন প্রতিষ্ঠা হওয়ার আগেই তাঁর নিকটবর্তী হওয়ার জন্য সিজদা বা নামাজের নির্দেশ দিয়েছিলেন। সুতরাং বুঝা গেলো, সর্বহালতে আল্লাহর আদেশ অনুযায়ী তাঁর নৈকট্য অর্জন করা ফরজ। এর বিপরীতে গিয়ে যে কথা হেযবুত তওহীদ দাবি করেছে, এটা উক্ত আয়াতকে অস্বীকার করার অপরাধে তাদের মুসলিম বলার কোনো সুযোগ আছে কি?

দুই.
উপরোক্ত আয়াতটিতে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের জন্য কোনো শর্তারোপ করা হয়নি। অর্থাৎ ‘ইসলামী আইন প্রতিষ্ঠা হওয়ার আগে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা যাবে কি যাবে না, এমন কোনো শর্তারোপ মহান আল্লাহ করেননি। অতএব বুঝা গেলো, আল্লাহর নির্দেশ হলো, সর্বহালতে তাঁর নৈকট্য অর্জন করা লাগবেই। এটা আল্লাহর নির্দেশ, তথা ফরজ। সুতরাং কুরআনে কারীমের مطلق তথা শর্তহীন আয়াতকে مقيد তথা শর্তযুক্ত করার অধিকার পৃথিবীর কারো নেই। অতএব আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের প্রচেষ্টা করার আগে ইসলামী আইন প্রতিষ্ঠা করার শর্তারোপ করা কুরআনের অপব্যাখ্যার শামিল। সুতরাং ‘ইসলামী আইন প্রতিষ্ঠা হওয়ার আগে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা নাজায়েয’ এটা একটি ডাহা মিথ্যাচার। ও খোদাদ্রোহীতার শামিল।

দলীল: ৪

হাদিসে কুদসীতে এসেছে, হযরত আনাস রা. হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর প্রতিপালক থেকে বর্ণনা করেন, আল্লাহ তা’আলা বলেছেন,

قَالَ إِذَا تَقَرَّبَ الْعَبْدُ إِلَيَّ شِبْرًا تَقَرَّبْتُ إِلَيْهِ ذِرَاعًا وَإِذَا تَقَرَّبَ مِنِّي ذِرَاعًا تَقَرَّبْتُ مِنْهُ بَاعًا وَإِذَا أَتَانِي مَشْيًا أَتَيْتُهُ هَرْوَلَةً

অর্থাৎ তিনি বলেনঃ আমার বান্দা যখন আমার দিকে এক বিঘত নিকটবর্তী হয়, আমি তখন তার দিকে এক হাত নিকটবর্তী হই। আর সে যখন আমার দিকে এক হাত নিকটবর্তী হয়, আমি তখন তার দিকে দু’হাত নিকটবর্তী হই। সে যদি আমার দিকে হেঁটে আসে আমি তার দিকে দৌড়ে যাই।
সূত্র: সহিহ বুখারী, হাদিস: ৭৫৩৬

দলীল: ৫

আরেকটি হাদিসে কুদসীতে এসেছে,

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم إِنَّ اللَّهَ قَالَ مَنْ عَادَى لِي وَلِيًّا فَقَدْ آذَنْتُهُ بِالْحَرْبِ وَمَا تَقَرَّبَ إِلَىَّ عَبْدِي بِشَىْءٍ أَحَبَّ إِلَىَّ مِمَّا افْتَرَضْتُ عَلَيْهِ وَمَا يَزَالُ عَبْدِي يَتَقَرَّبُ إِلَىَّ بِالنَّوَافِلِ حَتَّى أُحِبَّهُ فَإِذَا أَحْبَبْتُهُ كُنْتُ سَمْعَهُ الَّذِي يَسْمَعُ بِهِ وَبَصَرَهُ الَّذِي يُبْصِرُ بِهِ وَيَدَهُ الَّتِي يَبْطُشُ بِهَا وَرِجْلَهُ الَّتِي يَمْشِي بِهَا وَإِنْ سَأَلَنِي لأُعْطِيَنَّهُ وَلَئِنِ اسْتَعَاذَنِي لأُعِيذَنَّهُ وَمَا تَرَدَّدْتُ عَنْ شَىْءٍ أَنَا فَاعِلُهُ تَرَدُّدِي عَنْ نَفْسِ الْمُؤْمِنِ يَكْرَهُ الْمَوْتَ وَأَنَا أَكْرَهُ مَسَاءَتَهُ

অর্থাৎ হযরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আল্লাহ তা’আলা বলেন, যে ব্যাক্তি আমার কোন ওলীর সঙ্গে শত্রুতা রাখবে, আমি তার সাথে যুদ্ধ ঘোষনা করি। আমার বান্দা আমি যা তার উপর ফরয করেছি সেই ইবাদতের চাইতে আমার কাছে অধিক প্রিয় কোন ইবাদত দ্বারা আমার নৈকট্য লাভ করবে না। আমার বান্দা সর্বদা নফল ইবাদত দ্বারা আমার নৈকট্য অর্জন করতে থাকবে। এমন কি অবশেষে আমি তাকে আমার এমন প্রিয় পাত্র বানিয়ে নেই যে আমিই তার কান হয়ে যাই, যা দিয়ে সে শুনে। আমিই তার চোখ হয়ে যাই, যা দিয়ে সে সবকিছু দেখে। আর আমিই তার হাত হয়ে যাই, যা দিয়ে সে ধরে। আমিই তার পা হয়ে যাই, যার দ্বারা সে চলে। সে যদি আমার কাছে কোন কিছু সাওয়াল করে, তবে আমি নিশ্চয়ই তাকে তা দান করি। আর যদি সে আমার কাছে আশ্রয় চায়, তবে অবশ্যই আমি তাকে আশ্রয় দেই। আমি যে কোন কাজ করতে চাইলে এটাতে কোন রকম দ্বিধা সংকোচ করি-না যতটা দ্বিধা সংকোচ মুমিন বান্দার প্রাণ হরণে করি। সে মৃত্যুকে অপছন্দ করে আর আমি তার কষ্ট অপছন্দ করি।
সূত্র: সহিহ বুখারী, হাদিস: ৬৫০২

সুবহানাল্লাহ! আল্লাহর নৈকট্য অর্জনকারীরা কত প্রিয় মহান রবের কাছে। অথচ এ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি থেকে দূরে রাখার জন্য তারা কত ভয়ঙ্কর ছক এঁকেছে।

ছয়.
প্রিয় পাঠক, আপনার কমনসেন্সসকে একবার প্রশ্ন করুন তো, যিনি আমাদের সৃষ্টি করলেন, নিয়মিত লালন-পালন করে যাচ্ছেন, তাঁর নৈকট্য অর্জন করার জন্য কোনো দলীল প্রয়োজন হয়? এটা তো সর্বজনবিদিত বিষয় যে, গোলাম তাঁর মালিকের নৈকট্য অর্জন করবে, স্বামী-স্ত্রী একে অপরের নৈকট্য অর্জন করবে এবং করে থাকে। এটা নৈতিকতার দাবি। তাহলে রব্বুল আলামীনের নৈকট্য অর্জন আবশ্যকীয় নয়, এটা কি কোনো সুস্থ ও বিবেকবান মানুষ বিশ্বাস করবে? আর যারা এমন কথা প্রচার করে যাচ্ছেন, তারা কিভাবে মুমিন-মুসলিম হয়, এটা পাঠকদের বিবেকের কাছে সোপর্দ করলাম।

Check Also

উম্মতের বয়স ৬০/৭০ বছর।

প্রিয় পাঠক, আমি আগাগোড়াই বলে আসছি, হেযবুত তওহীদ একটি ভ্রান্ত দল। তাদের এ ভ্রান্তির পেছনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.